Home > খেলাধুলা > যুবাদের ফাইনালে ওঠা হলো না

যুবাদের ফাইনালে ওঠা হলো না

প্রথম ছয় ব্যাটসম্যানের কেউই ২৭ বলের কম খেলেননি, কিন্তু এককভাবে ৩৮ রানের বেশিও কেউ করতে পারেননি। টপ এবং মিডল অর্ডারের উইকেটে সেট হয়েও এভাবে থিতু হতে না পারার ব্যর্থতায় বাংলাদেশ ভুগেছে নিদারুণভাবে। শ্রীলংকার বিপক্ষে যুব এশিয়া কাপের সেমিফাইনালে বাংলাদেশের সংগ্রহ আটকে গেছে ১৯৪ রানে। যে রান তাড়া করতে নেমে বৃষ্টির কবলে পড়ার আগে ২৭.১ ওভারেই ২ উইকেটে ১০৬ রান তুলে ফেলে লংকান যুবারা। শেষ পর্যন্ত খেলা আর না হওয়ায় স্বাগতিকরা ডিএল মেথডে ম্যাচ জিতে নেয় ২৬ রানে। আগামীকালের ফাইনালে যুব এশিয়া কাপের শিরোপা লড়াইয়ে লংকা খেলবে ভারতের বিপক্ষে।

কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে গতকালের দিবারাত্রির ম্যাচটিতে টস জিতে প্রথম হাসিটা ছিল সাইফ হাসানদেরই। এমনকি ম্যাচ শুরুর প্রথম আধঘণ্টাও ছিল সফরকারীদের অনুকূলে। সজীব হোসেনকে নিয়ে ব্যাটিং ওপেন করতে নেমে প্রথম ৮ ওভারেই স্কোরবোর্ডে ৩৪ রান তুলে ফেলেন সাইফ। নবম ওভারে বল করতে এসে ‘নো’ বল দিয়ে শুরু করা জিহান ডেনিয়েলের পরের বলে ছক্কাও হাঁকান যুবদলের অধিনায়ক। ছন্দটা এর বেশি ধরে রাখা যায়নি। ওই ওভারেরই তৃতীয় বলে আউট হয়ে ফেরেন সাইফ। ২৭ বলের ইনিংসটিতে ২ চার ১ ছয়ে ২৬ রান করে যান অধিনায়ক। উদ্বোধনী জুটিতে ৪২ রানের ভালো ভিত্তি পেয়ে যাওয়ার পরও অবশ্য পরের ওভারগুলো আর ভালো যায়নি। দলীয় ৫৬ রানের মাথায় ৩৪ বলে ১৮ রান করে বিদায় নেন আরেক ওপেনার সজীবও। এরপর হাবিবুর রহমানকে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন সহঅধিনায়ক আফিফ হোসেন। ১০ ওভার স্থায়ী দু’জনের তৃতীয় উইকেট জুটিতে আসে ৩৪ রান। এরপরই দৃশ্যপটে আবির্ভাব বাঁহাতি স্পিনার প্রভিন জয়াবিক্রমার। লংকান এই যুবা হাবিবকে এলবির ফাঁদে ফেলে নিজের প্রথম আঘাতটা হানেন। দলকে ১০০ পার করিয়ে দেওয়ার পর আর বেশি এগিয়ে নিতে পারেননি আফিফও। ভিরাসিংহের বলে ৩৬ রান করে যখন আউট হন, বাংলাদেশের রান তখন ৪ উইকেটে ১১৮। বাংলাদেশ তাদের ইনিংস সর্বোচ্চ ৪৮ রানের জুটিটা পায় এর পর। মোহাম্মদ রাকিবকে নিয়ে ভালোই খেলছিলেন রায়ান রাফসান রহমান। ৩৮ ওভার শেষের পর রান বাড়াতে চালিয়ে খেলা শুরু করবেন, এমন সময়ই ফের জয়বিক্রমার আঘাত। ৪ বলের ব্যবধানে সাজঘরে ফেরেন রাফসান ও কাজী অনিক। ৫৮ বল মোকাবেলায় সর্বোচ্চ ৩৮ রান করা রাফসান আউট হন ডাউন দ্য উইকেটে খেলতে গিয়ে। জয়াবিক্রমার চতুর্থ শিকারও আরেক সেট ব্যাটসম্যান- রকিব। তেতালি্লশতম ওভারে ২২ রান করে রকিব আউট হয়ে যেতেই মূলত বাংলাদেশের রান থমকে যায়। আরও ৬ ওভার ইনিংস টিকে থাকলেও স্কোরবোর্ডে জমা হয় মাত্র ১৫ রান, তাও নাইম হাসানের একাই তোলা ১১ রানের সুবাদে। শ্রীলংকার জয়াবিক্রমা ৪ উইকেট নেন ১০ ওভারে মাত্র ২৫ রানের বিনিময়ে। ২৯ রানে ৩ উইকেট নেন আরেক বাঁহাতি স্পিনার হারিন বীরাসিংহে।

গতকালের আগে যুব ওয়ানডেতে ৩৪ বারের দেখায় ২০ বারই জিতেছিল বাংলাদেশ। এমনকি সর্বশেষ চারটিতেও জয় ছিল জুনিয়র টাইগারদেরই। কিন্তু গতকালের মঞ্চে আর জেতা হলো না সাইফ হাসানদের।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ