Home > খেলাধুলা > সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া পাঁচ ক্রিকেটার

সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া পাঁচ ক্রিকেটার

বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ তথা আইপিএলের ২০২০ আসরের নিলাম। যেখানে বিদেশি কোটায় সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্যাট কামিন্স। তার দাম ১৫ কোটি রূপি ছাড়িয়েছে। দুই অঙ্কের কোটায় তিনি ছাড়াও দাম পেয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও ক্রিস মরিস। দুই অঙ্কের নিচে সবেচেয়ে বেশি দাম পাওয়াদের তালিকায় আছেন শেল্ডন কটরেল ও নাথান কাল্টার নীল। চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে, কোন কোন ফ্র্যাঞ্চাইজি তাদের দলে ভিড়িয়েছে এতো এতো রূপি খরচ করে।

পাঁচ : নাথান কাল্টার নীল (৮ কোটি)

আইপিএলের নিলামে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া বিদেশি ক্রিকেটারদের তালিকায় পাঁচ নম্বরে আছেন অস্ট্রেলিয়ার নাথান কাল্টার নীল। তাকে ৮ কোটি রূপিতে দলে ভিড়িয়েছে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স।

যদিও তার ভিত্তিমূল্য ছিল ১ কোটি রূপি। শুরুতেই তাকে দলে ভেড়াতে লড়াই শুরু করে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও চেন্নাই সুপার কিংস। একটা সময় গিয়ে চেন্নাই সরে দাঁড়ালে ৮ কোটি রূপিতে ৩২ বছর বয়সী এই পেস অলরাউন্ডারকে দলে টানে মুম্বাই।

চার : শেল্ডন কটরেল (৮.৫ কোটি)

সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়াদের তালিকায় চতুর্থ স্থানে আছেন ‘স্যালুট ম্যান’ শেল্ডন কটরেল। তার ভিত্তিমূল্য ছিল মাত্র ৫০ লাখ। সেখান থেকে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব, রাজস্থান রয়্যালস ও দিল্লি ক্যাপিটালস লড়াই করে ৮ কোটি ছাড়িয়ে নেয়। শেষ পর্যন্ত তার ভিত্তিমূল্যের ১৭ গুণ বেশি দামে (৮.৫ কোটি রূপি) ক্যারিবিয়ান এই পেসারকে কিনে নেয় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

পাওয়ার প্লেতে তার চিড়েফুঁড়ে ফেলা স্টাইলের বোলিং বেশ কাজে দিবে পাঞ্জাবের জন্য। ৩০ বছর বয়সী কটলের অবশ্য এর আগে কখনো আইপিএলে খেলেননি। এবার হয়তো তার অভিষেক হতে যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে কিছুটা সমস্যায় পড়তে পারেন ভারতের পেসার মোহাম্মদ শামি।

তিন : ক্রিস মরিস (১০ কোটি)

নিলামে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া বিদেশিদের মধ্যে তিনে আছেন দক্ষিণ আফ্রিকার অলরাউন্ডার ক্রিস মরিস। গেল বছর তিনি দিল্লি ক্যাপিটালসের হয়ে খেলেছিলেন। এবার তাকে ছেড়ে দেয় দিল্লি। নিলামে তার ভিত্তিমূল্য ছিল ১.৫ কোটি রূপি। তাকে দলে নিতে টানাটানি শুরু করে রাজস্থান রয়্যালস, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ও রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। একটা সময় রাজস্থান হাল ছেড়ে দেয়। লড়াই চলে পাঞ্জাব ও আরসিবির মধ্যে। একটু পর সেখানে যোগ দেয় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। তাতে মরিসের দাম বাড়তে থাকে। শেষ পর্যন্ত বেঙ্গালুরু ১০ কোটি রূপিতে তাকে দলে ভেড়ায়।

মরিস অবশ্য আইপিএলে পরীক্ষিত সৈনিক। ডেথ ওভারে বোলিংয়ের পাশাপাশি ব্যাট হাতেও রাখতে পারেন অবদান। চাপের মধ্যেও ভালো খেলতে পারেন। তাইতো তাকে দলে টানতে লড়াই হয়েছে, খরচ হয়েছে অনেক রূপি।

দুই : গ্লেন ম্যাক্সওয়েল (১০.৭৫ কোটি)

সবচেয়ে বেশি দাম পাওয়াদের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। তার ভিত্তিমূল্য ছিল ২ কোটি রূপি। তাকে নিয়ে যে টানাটানি হবে সেটা ছিল অনুমেয়। তার দাম যে ১০ কোটি রূপি ছাড়াবে সেটাও অনেকের অনুমানের মধ্যে ছিল। নিলামে তাকে নিয়ে লড়াই শুরু করে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব ও দিল্লি ক্যাপিটালস। দ্রুতই তার দাম ৮.৫ কোটি ছাড়িয়ে যায়। কেউ হাল না ছাড়ায় শেষ পর্যন্ত ১০.৭৫ কোটি রূপিতে তাকে দলে ভেড়ায় কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব।

ম্যাক্সওয়েলও আইপিএলে পরীক্ষিত অলরাউন্ডার। কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবে খেলেছেন অনেক দিন। অভিজ্ঞতাও অনেক। তার পেছনে ১০.৭৫ কোটি রূপি খরচ করা হয়তো অতিরঞ্জিত কিছু হয়নি।

এক : প্যাট কামিন্স (১৫.৫ কোটি)

এবারের নিলামে সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হওয়া বিদেশি ক্রিকেটারের নাম প্যাট কামিন্স। তাকে ১৫.৫ কোটি রূপিতে দলে ভিড়িয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স (কেকেআর)। তাকে দলে নিতে শুরুতেই ডাক দেয় রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। সেখানে যোগ দেয় দিল্লি ক্যাপিটালস। তাদের দর কষাকষিতে কামিন্সের মূল্য উঠে যায় ৫.৭৫ কোটি রূপিতে।

তার দাম ১০ কোটি রূপিতে পৌঁছাতে বেশি সময় লাগেনি। দুই অঙ্ক ছোঁয়ার পর কলকাতা নাইট রাইডার্স যোগ দেয়। একটা সময় তারা ১৫ কোটিতে তাকে দলে ভেড়াতে যাচ্ছিল। কিন্তু বাঁধ সাধে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। শেষ পর্যন্ত তাদের হটিয়ে ১৫ কোটি ৫০ লাখ রূপিতে ২৬ বছর বসয়ী এই পেসারকে দলে টানে কেকেআর। তাকে ঘিরেই গড়ে উঠবে কিং খানের দলের পেস বোলিং বিভাগ।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ