Home > খেলাধুলা > বিশ্বকাপের সুপার ১২-তে জায়গা হয়নি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার

বিশ্বকাপের সুপার ১২-তে জায়গা হয়নি বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার

ক্রীড়া ডেস্ক : ২০২০ সালের ১৮ অক্টোবর থেকে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত অস্ট্রেলিয়ার আটটি ভেন্যুতে অনুষ্ঠিত হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সপ্তম আসর। এই আসরে অংশ নিবে ১৬টি দল। তবে আগেই সরাসরি সুপার-১২ নিশ্চিত করেছে ৮টি দল।

সেখানে অবশ্য জায়গা হয়নি এই ফরম্যাটের প্রাক্তন চ্যাম্পিয়ন ও তিনবারের ফাইনালিস্ট শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের। সে কারণে বাছাইপর্ব খেলে আসা ছয়টি দলের সঙ্গে গ্রুপ পর্বে খেলে তবেই সুপার ১২-তে জায়গা করে নিতে হবে বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কাকে। আজ মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে থাকা ৮টি দলের সুপার-১২ নিশ্চিত হয়েছে। আট দলের তালিকায় রয়েছে (র‌্যাঙ্কিং অনুযায়ী) পাকিস্তান, ভারত, ইংল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তান।

আফগানিস্তানের চেয়ে ৫ পয়েন্ট কম থাকায় নবম স্থানে অবস্থান নিয়েছে শ্রীলঙ্কা। আর ১৫ পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে দশম স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। সে কারণে সুপার-১২ এর আগে আরো একটি পরীক্ষা দিতে হবে এশিয়ার দুই দেশকে। ২০২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব থেকে গ্রুপপর্বে আসবে ছয়টি দল। এই আট দল মিলে খেলবে ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্ব। সেখান থেকে চারটি দল উঠবে সুপার ১২-তে ।

অবশ্য সরাসরি সুপার ১২-তে জায়গা না পাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন শ্রীলঙ্কার টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা। অন্যদিকে সাকিব আল হাসান তাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের কারণে গ্রুপ পর্ব পেরিয়ে সুপার ১২-তে যেতে আত্মবিশ্বাসী। এই চ্যালেঞ্জের জন্য তারা ভালোভাবে প্রস্তুতি নিয়েই যাবে।

মালিঙ্গা বলেছেন, ‘আমরা সরাসরি সুপার ১২-তে যেতে পারিনি। আসলে এটা কিছুটা হলেও হতাশাজনক। তবে আমি আশাবাদী টুর্নামেন্টে আমরা ভালো করব। তিনটি ফাইনাল খেলে ও একবার শিরোপা জেতার পর সকলেরই একটা প্রত্যাশা থাকে আমরা সেরা আটের মধ্যে থাকব। তবে আমাদেরকে গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলোকে অতিরিক্ত ম্যাচ খেলার সুযোগ হিসেবে নিতে হবে। সেখানে ভালো পারফরম্যান্স করে নকআউট পর্বের জন্য নিজেদের প্রস্তুত করতে হবে। আমাদের নিজেদের দিনে আমরা যেকোনো সেরা দলকে হারিয়ে দেওয়ার ক্ষমতা রাখি। আমাদের বেশ কিছু ভালো খেলোয়াড় আছে। তারা র‌্যাঙ্কিংয়েও এগিয়ে। আমাদের ভালো করাটা সময়ের ব্যাপার। আমরা আমাদের পথে আসা যেকোনো চ্যালেঞ্জ নিতে প্রস্তুত।’

সাকিব আল হাসান বলেছেন, ‘আমরা সুপার-১২ এর সরাসরি সুযোগ পাইনি। তবে গ্রুপ পর্বে খেলে গিয়ে টুর্নামেন্টে ভালো করার ব্যাপারে আশাবাদী। আমরা আমাদের দিনে যেকোনো দলকে হারিয়ে দিতে পারি। এই টুর্নামেন্টের অনেক দূর পর্যন্ত না যাওয়ার কোনো কারণ দেখছি না আমি। বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের মাটিতে আমরা টি-টোয়েন্টি সিরিজ জিতেছি। সেটা খুব বেশি দিন আগে নয়। সেই পারফরম্যান্স আমাদের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়েছে।’

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ