Home > খেলাধুলা > নড়াইল-মাশরাফি, ভালোবাসার যুগলবন্দী

নড়াইল-মাশরাফি, ভালোবাসার যুগলবন্দী

নড়াইল থেকে: প্রকৃত ভালোবাসার মানে কি? মন থেকে যুগলবন্দী নিঃস্বার্থ ভালোবাসবে, নিজেদের সুখ দুঃখের খেয়াল রাখবে; এইতো! তাহলে নড়াইল আর মাশরাফি ভালোবাসার সেরা যুগলবন্দী।বিশ্বাস না হলে নড়াইল এসেই দেখুন। এখানে দল মত নির্বিশেষে সবাই মাশরাফির ভক্ত, সবাই মাশরাফির অনুসারী। তাইতো বাংলাদেশের সবথেকে ছোট জেলায় চলছে নৌকার জোয়ার।

একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করছেন মাশরাফি। চিত্রা নদীতে দাপিয়ে বেড়ানো ছেলেটাই আজ নড়াইলের জননেতা। যেখানে তার শৈশবটা কেটেছে হই-হুল্লোড় আর দস্যিপনায়। আজ সেখানে জনসংযোগ করছেন, ভোট চাইছেন। ছোটবেলার ডানপিটে ছেলেটাই আজ নড়াইলকে দেখাচ্ছেন সুন্দর ও উজ্জ্বল ভবিষ্যতের স্বপ্ন। মাশরাফির প্রচারণায় আজ সোমবার যোগ দিয়েছেন জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার সৈয়দ রাসেল ও ডলার মাহমুদ।

সোমবার সকাল ১১টা। সবুজ রঙের পাঞ্জাবী আর কালো পাজামা পড়ে মাশরাফি দ্বিতীয়দিনের মতো বেরুলেন জনসংযোগ আর পথসভায়। জাতীয় দলের কমিটমেন্ট আর নিজের ইনজুরির শুশ্রূষা করে খুবই অল্প দিন পেয়েছেন নড়াইলে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য। রোববার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে গিয়েছিলেন ভোটারদের সঙ্গে সাক্ষাতে। আজ সারাদিন আর রাত মিলিয়ে মোট ১৩ জনসভা! ভাবা যায়।

কোনো ক্লান্তি নেই, কোনো খাওয়া-দাওয়া নেই। রাস্তায় পাওয়া কলা, বাদাম কিংবা পিঁয়াজু সিঙ্গারাতেই দিন পাড়। রাত নয়টায় যখন মাশরাফি নিজের বাড়ির পথ ধরলেন তখনও তার পাশে হাজারো মানুষ। মুখে একটাই স্লোগান, ‘মাশরাফি, মাশরাফি, মাশরাফি।’

একঝাঁক তরুণ ক্রিকেটারকে নিয়ে মাশরাফি জাতীয় দলের চিত্র বদলে দিয়েছেন। যে দলটা ভয়ডরহীন ক্রিকেট খেলে ২২ গজের ক্রিজে। রাজনীতির ময়দানেও মাশরাফির সঙ্গী একঝাঁক তরুণ। যারা নড়াইলকে চান ‘আদর্শ’ জেলা বানাতে।মাশরাফিরও একই অঙ্গীকার,‘রাজনৈতিক কথা বলতে আসিনি। বলতেও চাই না। খেলোয়াড়সুলভ মানসিকতা নিয়েই আপনাদের এখানে এসেছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে একটি সুযোগ দিয়েছেন। আমাকে নৌকা প্রতীক দিয়ে আপনাদের কাছে পাঠিয়েছেন। আপনাদের সহযোগিতায় একটি সুন্দর, সমৃদ্ধ নড়াইল গড়ে তুলতে পারব ইনশাল্লাহ।’

মাশরাফিতে বিশ্বাস রাখতে বলেন স্ত্রী সুমানা হক সুমিও। ‘স্বামী’ মাশরাফি প্রচারণা চালিয়েছেন স্ত্রীর এলাকা ছত্রহাজারীতে। সেখানে সুমি মঞ্চে উঠে মাশরাফির জন্য ভোট চেয়ে বলেন,‘আপনাদের ‘জামাই’ আজ এখানে এসেছে শুধুমাত্র নড়াইলের উন্নয়ন এবং উন্নতির জন্য। আপনারা তার ওপর বিশ্বাস রেখে তাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন। কথা দিচ্ছি আমরা সবাই মিলে সমৃদ্ধ ও সুন্দর নড়াইল উপহার দেব।’

নড়াইলে মাশরাফির জনপ্রিয়তা এবং ভালোবাসা বোঝা যাবে প্রতিটি রাস্তায়, প্রতিটি অলিগতিতে চলাফেরার পথে। চায়ের দোকানে চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে শোনা গেল তরুণদের আড্ডা,‘মাশরাফি ভাই এখানে এমপি হলে নিশ্চিত অনেক কিছুই পাল্টে যাবে।’ আরেক তরুণ যোগ দিলেন এভাবে,‘ভাইয়ের এখান থেকে পাওয়ার কিছু নেই। এমপি হলে শুধু দিয়ে যাবে।’

‘নৌকার প্রচার ছাড়া এখানে কিছুই চোখে পড়ে না। এখানে বিএনপি কিংবা অন্য দলের যারাই আছে সবাই মাশরাফি ভাইকে সমর্থন করছে। অনেকে নীরবে করছে। অনেকে প্রকাশ্যে। ৩০ তারিখ মাশরাফি ভাই মেলা ভোট পাবে তা নিশ্চিত।’- বলছিলেন মাঝবয়সি এক লোক।

নড়াইল আর মাশরাফি এক সুতোঁয় গাথা। নড়াইলের প্রতিটি মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত মাশরাফি। জনগণের অফুরন্ত ভালোবাসার বরমাল্য শোভা পাচ্ছে তার গলায়। প্রীতি, সম্মান, শ্রদ্ধার মহাসমারোহে তারা ভালোবাসার যুগলবন্দী।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ