Home > খেলাধুলা > মেসিদের কাঁদিয়ে কোপার নতুন চ্যাম্পিয়ন চিলি

মেসিদের কাঁদিয়ে কোপার নতুন চ্যাম্পিয়ন চিলি

খেলা প্রতিবেদক
জনতার বাণী,

সান্তিয়াগো: শিরোপার
জন্য আর্জেন্টিনার ২২ বছরের
অপেক্ষা আরও দীর্ঘায়ত হলো।
তবে লিওনেল মেসিদের স্তব্ধ
করে প্রায় একশ’ বছরের
আক্ষেপের ঠিকই অবসান
ঘটিয়েছেন আলেক্সিস
সানচেস-ক্লাওদিও
ব্রাভোরা। টাইব্রেকারে
আর্জেন্টিনা সমর্থকদের হৃদয়
ভেঙে প্রথমবারের মতো
কোপা আমেরিকার
শিরোপা জিতে নিয়েছে
চিলি।
এর ফলে লিওনেল মেসির
‘আর্জেন্টিনা দুঃখ’ রয়ে গেল
দুঃখ হয়েই। আর বিশ্ব ফুটবলে ২৩
বছর ধরে বড় কোনো শিরোপা
না জেতার হতাশাটা
আর্জেন্টিনার জন্য আরো
বিলম্বিত হল রবিবার ভোর
রাতে।
লাতিন আমেরিকার সবচেয়ে
মর্যাদাপূর্ণ ফুটবল আসর কোপা
আমেরিকার শিরোপা
জিততে পারেনি মেসির
আর্জেন্টিনা। আসরের
ফাইনালে টাইব্রেকারে
আর্জেন্টিনাকে ৪-১ গোলে
হারিয়ে শিরোপা জিতে
নয়া ইতিহাসের জন্ম
দিয়েছে স্বাগতিক চিলি।
কারণ প্রথমবারের মতো
টুর্নামেন্টের শিরোপা
জিতলো দেশটি। ১৮৯৫ সালে
দেশের ফুটবল ফেডারেশন গঠন
হলে ফুটবলের আন্তর্জাতিক
কোনো আসরে কখনোই
কোনো শিরোপা জিততে
পারেনি চিলি।
রবিবার ভোরে নিজ
মাটিতে কোপা আমেরিকার
ফাইনালে সেই দুঃখ ঘুঁচানোর
মিশনে নেমেছিল
অ্যালেক্সি সানচেজ-
ক্লাউদিও ব্রাভোরা।
অন্যদিকে, টুর্মামেন্টের হট
ফেভারিট লিওনেল
মেসিরা মাঠে
নেমেছিলেন আন্তর্জাতিক
ফুটবলের সিনিয়র লেভেলে
২৯ বছরের শিরোপা খরা
কাটানোর মিশনে।
কিন্তু শেষ অব্দি ‘ভাগ্য
দেবী’ চিলিকেই
পরিয়েছেন তার বরমাল্য। আর
ব্রাজিল বিশ্বকাপের পর এক
বছরের ব্যবধানে
মেসিদেরকে আরেকবার
অশ্রুসিক্ত চোখে ফাইনালের
মঞ্চ ত্যাগ করতে হয়েছে।
কোপা আমেরিকার এই
ফাইনালটি যে ফুটবল শৈলীর
রূপ-গন্ধ ছড়িয়েছে, তেমনটা
নয়। বিশেষ করে স্বাগতিক
হওয়ার সুবাদে চিলির
ফুটবলাররা পেশী শক্তির
প্রভাব খাটানোয়
আর্জেন্টিনার ফুটবলাররা
বিশেষ করে মেসি তার
স্বাভাবিক ছন্দে খেলতে
পারেননি মোটেও।
মেসি বল পেলে কখনো
জার্সি ধরে টেনে, কখনো
পেটে ভয়ঙ্করভাবে লাথি
মেরে, আবার কখনো পায়ে
পা বাধিয়ে তাকে ফেলে
দিয়েছেন চিলির ফুটবলাররা।
তবে রেফারী বিষয়গুলোকে
খুব একটা গুরুতর না মনে করায়
এমন বাজে ট্যাকেলের জন্য
কখনোই খুব বড় সমস্যায় পরতে
হয়নি চিলিয়ানদের।
এরপর মেসি বেশ কিছু সুযোগ
সৃষ্টি করেছিলেন; তবে তার
সতীর্থরা তা কাজে
লাগাতে পারেনি।দুর্ভাগ্যও
যেন ভর করেছিল
আর্জেন্টিনার ওপর। ম্যাচের
২৮ মিনিটে পায়ের
পেশীতে টান পড়ায় মাঠ
ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন
অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া।
এই ক্ষতি পুষিয়ে দিতে
পারেনি তার বদলী
হিসেবে মাঠে নামা
এজিক্যুয়েল লেভেজ্জি।তবে
পেশী শক্তির বাইরে চিলির
ফুটবলাররাও দারুণ খেলেছেন।
একাধিক সুযোগ সৃষ্টি
করেছেন তারাও।
বিশেষ করে আর্সেনাল
তারকা অ্যালেক্সি সানচেজ
এই রাতে উজ্ব্বল ছিলেন বল
পায়ে। শেষ অব্দি
টাইব্রেকারে তার শটেই জয়
নিশ্চিত হয়েছে চিলির; লা
রোজারা জিতে নিয়েছে
শত বছর ধরে স্বপ্ন দেখা
কাঙ্খিত সেই শিরোপা।
নির্ধারিত ৯০ মিনিটে
খেলা গোলশূন্য থাকার পর
অতিরিক্ত ৩০ মিনিটেও গোল
করতে পারেনি কোনো দল।
ফলে ম্যাচের ভাগ্য
গড়িয়েছে টাইব্রেকারে।
সেখানে আর্জেন্টিনার
পক্ষে প্রথম শট নিয়ে গোল
করেন দলের অধিনায়ক
লিওনেল মেসি। এর আগে
চিলির হয়ে প্রথম গোলটি
করেছেন মাতি ফারনান্দেজ।
আর্তুরো ভিদাল দ্বিতীয় শটে
জাল কাঁপালে চিলি
এগিয়ে গিয়েছে ২-১
গোলে। কিন্তু আর্জেন্টিনার
পক্ষে শট নিতে এসে বল
গোলবারের অনেক উপর দিয়ে
মেরে দেন গঞ্জালো
হিগুয়েন।
চিলির পক্ষে তৃতীয় গোলটি
করেন আরানগুয়িজ (৩-১)। কিন্তু
আর্জেন্টিনার তৃতীয় শট
নিতে এসে মিস করেন এভার
বানেগাও। তার দুর্বল শট
ঠেকিয়ে দেন চিলির
অধিনায়ক ও মেসির
বার্সেলোনা সতীর্থ
ক্লাউদিও ব্রাভো।
ফলে অ্যালেক্সি
সানচেজের সামনে সুযোগ
আসে গোল করে চিলির
শতবর্ষীয় শিরোপা তৃষ্ণা
মেটানোর। সেই দায়িত্ব বেশ
ভালভাবেই পালন করেছেন
ইংলিশ ফুটবল ক্লাব
আর্সেনালের হয়ে খেলা এই
তারকা ফরোয়ার্ড। আর
তাতেই ৪-১ গোলের জয়ে
মেসিদের শিরোপা স্বপ্ন
চূড়মার করেছে চিলি;
সান্তিয়াগোর মাঠে কোপা
আমেরিকার শিরোপা নিয়ে
উল্লাসে ফেটে পড়েছে
চিলিয়ানরা; সানচেজের
দেশ এখন যে লাতিন
আমেরিকান ফুটবলের নতুন
রাজা।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ