মোসাদ্দেকের আত্মত্যাগেই ঢাকার জয়

স্পোর্টস ডেস্ক:খুলনা টাইটান্সকে হারিয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফাইনালে উঠেছে ঢাকা ডায়নামাইটস। ৫৪ রানের বড় ব্যবধানেই হারিয়ে ফাইনালের টিকিট কাটে দলটি। এ ম্যাচের গুরুত্বপূর্ণ সময়ে নিজের উইকেট ছাড় দেন তরুণ ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন। আর তাতে জীবন পেয়ে যান ক্যারিবিয়ান তারকা আন্দ্রে রাসেল। পরে এ রাসেলের ব্যাটেই লড়াকু সংগ্রহ পায় ঢাকা। তাই মোসাদ্দেকের আত্মত্যাগকেই ম্যাচে টার্নিং পয়েন্ট বলছেন রাসেল।

মঙ্গলবার মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে রাসেল বলেন, ‘আমি যদি তখন আউট হয়ে যেতাম তাহলে হয়তো অন্যরকম ম্যাচ হতে পারতো। তাই মাঝে মাঝে স্মার্ট হওয়াটা এবং ব্যক্তিগতভাবে না খেলে দলগত ক্রিকেট খেলা খুবই ভালো। হয়তো অন্যকেউ হলে উল্টো দিকে ঘুরতো এবং ক্রিজে ফিরে যেতো কিন্তু সে আমাকে থাকতে দিয়েছে। কারণ সে জানতো আমি

কী করতে পারি। আমি রান করতে পেরেছি এটা খুব ভালো। আমি নিজের জন্য ভাবি না দলের জন্য ভাবি।’

এদিন ঢাকার ইনিংসের ১৪তম ওভারের চতুর্থ বলে সিঙ্গেল নিতে ছুটে যান রাসেল। এ সময় তাকে ফিরিয়ে দেন মোসাদ্দেক। ততক্ষণে ফিরে যাওয়ার পথ শেষ হয়ে যায় রাসেলের। তাই সামনের দিকেই এগিয়ে যান এ ক্যারিবিয়ান। আর রাসেলকে এগিয়ে যেতে দেখে উইকেট থেকে বের হয়ে যান মোসাদ্দেক। নিজের উইকেটের বিনিময়ে রাসেলকে উইকেটে রাখেন তিনি। দিনশেষে রাসেলই তাদের সম্মানজনক স্কোর এনে দেন। ২৫ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৪৬ রান করেন এ ক্যারিবিয়ান। এরপর তিনটি উইকেট তুলে হন ম্যান অব দ্য ম্যাচ। দল থেকে স্বাধীনভাবে ক্রিকেট খেলতে দেয়ায় এমন পারফরম্যান্স করতে পেরেছেন বলে মনে করেন রাসেল।

‘হ্যাঁ আমাদের একটা ভালো দল আছে যা আমাদের এভাবে খেলার সুযোগ করে দেয়। আমাদের একটা ভালো ম্যানেজমেন্ট আছে যার ফলে একটা ভালো দল আছে। তারা আমাদের রিলাক্সডভাবে নিজেদের খেলাটা খেলার জন্য স্বাধীনতা দেয়। যার জন্য ভালো ক্রিকেট খেলতে কোনো চাপ অনুভব করি না।’

এদিন মাত্র ১৪০ রান সংগ্রহ করতে পেড়েছিল ঢাকা। কদিন আগেই যারা ১৫৮ রান করে সহজেই হেরেছিল এ খুলনার কাছেই। তাই এ রানকে পর্যাপ্ত মনে করেননি রাসেল। তবে জানতেন এ ম্যাচে হারলেও ফাইনালে ওঠার আরো একটি সুযোগ পাবেন তারা। তাই ভয়হীন ক্রিকেট খেলেই জয় পেয়ে যান বলে মনে করেন রাসেল।

‘সত্যি কথা বলতে আমার দৃষ্টিতে এ রান পর্যাপ্ত ছিল না জয়ের জন্য। তবে ভালো কথা হচ্ছে এ ম্যাচের পর আমাদের আরো সুযোগ ছিল, যার জন্য আমরা ভয়হীন ক্রিকেট খেলতে পেরেছি। আমি তাদের বলেছিলাম যাও মাঠে সেরাটা দাও ফলাফল যা হবার হবে। উইকেট যেমন ছিল তাতে ১৪০ রান পর্যাপ্ত ছিল না, তবে আমাদের বোলাররা খুবই চমৎকার বোলিং করেছে।-জাগো নিউজ

%d bloggers like this: