পিএসএলের ফাইনাল লাহোরেই

পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) দ্বিতীয় আসরের ফাইনাল ম্যাচটি লাহোরে আয়োজনের পরিকল্পনার কথা আগেই জানিয়েছিল পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি))। পিসিবি আজ নিশ্চিত করল, পিএসএলের ফাইনাল লাহোরেই আয়োজন করবে তারা। নিরাপত্তা শঙ্কায় যেসব বিদেশি খেলোয়াড় পাকিস্তানে যেতে চাইবে না তাদের বদলি হিসেবে অন্য কাউকে নেওয়ার বিকল্প পরিকল্পনাও করেছে পিসিবি।

অনেক দিন ধরেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট পাকিস্তান থেকে একপ্রকার নির্বাসিত। যেকোনো মূল্যে দেশে আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজন করতে চায় দেশটির ক্রিকেট বোর্ড। ‍দেশের নিরাপত্তা সম্পর্কে বিদেশি খেলোয়াড়দের নিশ্চয়তা দিতে পিসিবি সম্প্রতি পিএসএলের ফাইনাল লাহোরে আয়োজনের কথা জানায়।

কিন্তু সেখানে বাধ সাধে আন্তর্জাতিক খেলোয়াড়দের সংগঠন ফিকা। পাকিস্তান এখনো বিদেশি খেলোয়াড়দের জন্য অনিরাপদ বলে দাবি তোলে তারা। ফলে বিদেশি খেলোয়াড়রাও নড়েচড়ে বসেন। তবে সেটি নিয়ে ভাবছে না পিসিবি। বিকল্প ব্যবস্থা রেখে তারা লাহোরেই পিএসএলের ফাইনাল ম্যাচ চূড়ান্ত করল।

ফাইনাল লাহোরে হলেও ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু টুর্নামেন্টের বাকি ম্যাচগুলো হবে আরব আমিরাতের দুবাই ও শারজাহতে। এ ব্যাপারে পিসিবির এক মুখপাত্র ক্রিকইনফোকে বলেছেন, ‘সম্প্রতি গভর্নিং বডির সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে পিএসএলের ফাইনাল হবে লাহোরে। বিদেশি খেলোয়াড়দের পাকিস্তানে আসার জন্য পিসিবি অনুরোধ করবে। কিন্তু কোনো খারাপ পরিস্থিতির কারণে তারা আসতে না চাইলে আমরা একটি ড্রাফট করব সেসব খেলোয়াড়দের যারা পাকিস্তান সফরের জন্য প্রস্তুত।’

যেসব বিদেশি খেলোয়াড় পাকিস্তানে যেতে চাইবে না তাদের বিকল্প হিসেবে বিদেশি নিতে ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে আরেকটি নতুন ড্রাফট করা হবে বলে জানিয়েছে পিসিবি। শেষ পর্যন্ত বিদেশি খেলোয়াড় না পেলে স্থানীয় খেলোয়াড়দের নিয়ে হবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের এই টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতার ফাইনাল।

টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার জন্য এরই মধ্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ দলকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছে পিসিবি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড আগামী মার্চে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় একটি টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলার জন্য পাকিস্তানকে আমন্ত্রণ জানায়। তবে পাকিস্তান উইন্ডিজ বোর্ডকে জানিয়েছে, ফ্লোরিডায় পাকিস্তান খেলবে, যদি তারা পাকিস্তানের মাটিতে টি-টোয়েন্টি খেলতে আসে।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কার টিম বাসে সন্ত্রাসী হামলার পর থেকে পাকিস্তানে আর কোনো বড় দল সফর করতে যায়নি। এরপর টেস্ট খেলা দেশগুলোর মধ্যে কেবল জিম্বাবুয়ে ২০১৫ সালে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে পাকিস্তান সফরে গিয়েছিল।

%d bloggers like this: