চ্যালেঞ্জার্স ও মিরাজকে সতর্ক করলো বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল

মেহেদী হাসান মিরাজ ও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ঘটনার শুনানি শেষে আনুষ্ঠানি বিবৃতি দিয়েছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। ম্যাচের অল্পকিছুক্ষণ আগে মিরাজকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি পুরোপুরি সত্য নয় বলে বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। ফ্র্যাঞ্চাইজি ও মিরাজের ভুল বোঝাবোঝি হয়েছে জানিয়ে দুই পক্ষকেই সতর্ক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে শুনানির পর শুক্রবার (৪ ফেব্রুয়ারি) রাতে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক।

মল্লিক বলেন, ‘আমরা মিরাজ এবং চ্যালেঞ্জার্স কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। দুই পক্ষই স্বীকার করেছেন কেউই পেশাদার আচরণ করেনি। পুরো বিষয়টিই যোগাযোগের ঘাটতির কারণে এতোদূর গড়িয়েছে। অথচ বিষয়টি খুব সহজেই মীমাংসা হতে পারতো। তারা বিষয়টি এতোদূর পর্যন্ত পৌঁছানোর জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। পাশাপাশি বোর্ড এবং টুর্নামেন্টকে বিব্রতকর অবস্থায় ফেলার দায় স্বীকার করেছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘খেলোয়াড় এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পর গভর্নিং কাউসিল সন্তুষ্ট। এটি পুরোপুরি চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের অভ্যন্তরীণ সমস্যা ছিল, যা সমাধান হয়ে গেছে। মিরাজকে অধিনায়কত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়ার বিষয়টি নিয়েই ভুল বোঝুবুঝি হয়েছে। তারা ম্যাচের বেশ আগেই মিরাজকে অধিনায়কত্ব থেকে বাদ দেওয়ার বিষয়টি জানিয়েছিল। এই মুহূর্তে বোর্ড খেলোয়াড় এবং ফ্র্যাঞ্চাইজি কর্মকর্তাদের বিপিএলের প্রতি তাদের দায়িত্ব মনে করিয়ে দিয়েছে।’

শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন বিসিবি প্রধান নির্বাহী নিজাম উদ্দিন চৌধুরী, বিপিএল গভর্নিং কাউসিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক। চট্টগ্রাম ফ্র্যাঞ্চাইজির পক্ষে ছিলেন দলটির মালিক কে এম রিফাতুজ্জামান ও চিফ অপারেটিং অফিসার ইয়াসির আলম। এছাড়া শুনানিতে মিরাজও উপস্থিত ছিলেন।

গত ৩০ জানুয়ারি নানা নাটকীয়তার পর অবসান হয় মিরাজ ও চট্টগ্রাম ফ্যাঞ্চাইজির মধ্যকার ভুল বোঝাবুঝির। সারাদিন জুড়ে চলা নাটকের অবসান ঘটে মিরাজ ও ফ্র্যাঞ্চাইজির বৈঠকের মধ্য দিয়ে। বিকেল থেকে সন্ধ্যা জুড়ে চলা রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে জটিলতা অবসানের ঘোষণা দেন দুই পক্ষই।

%d bloggers like this: