Home > রাজনীতি > সাধারণ জনগণই সরকারের পতন ঘটাবে: নজরুল

সাধারণ জনগণই সরকারের পতন ঘটাবে: নজরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
জনতার বাণী,
ঢাকা: অত্যাচার-নির্যাতন
মামলা-হামলা করে
বিএনপিকে দমানো যাবে
না মন্তব্য করে বিএনপির
স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল
ইসলাম খান বলেছেন,
যাদের কথা চিন্তাও
করছেন না তারাই
আগামীদিনের আন্দোলনে
নেতৃত্ব দেবে। নির্যাতনের
সমুচিত জবাব দিয়ে
স্বৈরাচারী সরকারের পতন
ঘটাবে তারা।
মঙ্গবার দুপুরে জাতীয়
প্রেসক্লাবের ভিআইপি
লাউঞ্জে ডক্টরস
এসোসিয়েশন অব
বাংলাদেশ (ড্যাব)
আয়োজিত ‘জিয়াউর
রহমানের ৩৪তম শাহাদাত
বার্ষিকী উপলক্ষে গণতন্ত্র
ও শহীদ জিয়া’ শীর্ষক
আলোচনা সভায় তিনি এ
কথা বলেন।
নেতা-কর্মীদের গ্রেপ্তার
করলেই বিএনপি শেষ হয়ে
যাবে না মন্তব্য করে নজরুল
ইসলাম খান বলেন,
বাংলাদেশের মানুষ
লড়াইয়ের ময়দানে হয়তো
আমাদের সাথে থাকে না।
কিন্তু যথাসময়ে তারা
উপযুক্ত জবাব দিতেও ভুল
করে না।
বিএনপির এই জৈষ্ঠ্য নেতা
বলেন, ২০১৪ সালের
নির্বাচনে অংশ না নিয়ে
বিএনপি ভুল করেনি। একটা
সুষ্ঠু নির্বাচন হলেই তা
প্রমাণ হবে।
‘বাংলাদেশের জনগণের
হিসাব কখনো ভুল হয় না। সুষ্ঠু
নিরপেক্ষ নির্বাচনের
সুযোগ পেলে তারা সঠিক
রায় দিয়ে থাকে।’
তিনি বলেন, ৬টি সিটি
নির্বাচনে মোটামুটি সুষ্ঠু
পরিবেশ পেয়ে তারা
বুঝিয়ে দিয়েছিল তারা
কাদের সাথে। আর সদ্য শেষ
হওয়া নির্বাচন কেমন
ছিলো তা সবাই দেখেছে।
আওয়ামী লীগ নেতাদের
সমালোচনা করে বিএনপির
স্থায়ী কমিটির এই সদস্য
বলেন, যারা বলে জিয়াউর
রহমান মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন
না, আসলে তারাতো
মুক্তিযুদ্ধ দেখেইনি।
রাজনীতিতে সবাই সবার
সমালোচনা করার যোগ্য নয়।
তিনি বলেন, আমি মাঝে
মাঝে অবাক হই, বীরউত্তম
খেতাব কি তাহলে তিনি
নিজেই নিজেকে
দিয়েছেন!
বঙ্গবন্ধুর পরিবারকে সুরক্ষা
দানের জন্য প্রকাশিত
গেজেট প্রসঙ্গে
জাতীয়তাবাদী যুবদলের
সভাপতি সৈয়দ
মোয়াজ্জেম হোসেন
আলাল বলেছেন, এটা
আমাদেরকে মোগলদের
কথা মনে করিয়ে দেয়।
শেখ হাসিনার রাজনীতির
জনক জিয়াউর রহমান উল্লেখ
করে তিনি বলেন, বাকশাল
কায়েম করে আওয়ামী
লীগকে কবর দেওয়া
হয়েছিল। জিয়াউর রহমানই
স্বাক্ষর করার মধ্য দিয়ে
আওয়ামী লীগের পুনর্জন্ম
দিয়েছিলেন।
আলাল বলেন, বিএনপি
একটি গণতান্ত্রিক দল, আমরা
অন্যদের মত অস্ত্র নিয়ে
সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই
করতে পারি না এবং চাইও
না। সেই জন্যই আমরা দল
পুনর্গঠন করছি।
২০ দলীয় জোটের নেতা-
কর্মীদের ওপর নির্যাতন
প্রসঙ্গে তিনি বলেন,
সীমাহীন অত্যাচার-
নির্যাতনের পরও একটি
কর্মীকেও আওয়ামী লীগে
নেওয়া যায়নি, এটাইতো
গণতন্ত্রের বিজয়।
আয়োজক সংগঠনের
সভাপতি একে এম আজিজুল
হকের সভাপতিত্বে
আলোচনা সভায় আরো
বক্তব্য দেন, সংগঠনের
মহাসচিব ডা.এ জেড এম
জাহিদ হোসেন, যুগ্ম-
মহাসচিব রফিকুল ইসলাম
বাচ্চু, প্রকৌশলী রিয়াজুল
ইসলাম রিজু প্রমুখ।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ