Home > রাজনীতি > প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সঠিক নয়

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সঠিক নয়

সুন্দরবনের অদূরে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে তথ্য দিয়েছেন, তা সঠিক নয় বলে দাবি করেছে বিএনপি।

রোববার দুপুরে রাজধানী নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে দলের বক্তব্য তুলে ধরেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কারণে সুন্দরবনের ক্ষতির বাস্তবতাটি সবার কাছে পরিষ্কার। সরকারের উচিত সত্যকে স্বীকার করে এই প্রকল্প থেকে সরে আসা।

সুইজারল্যান্ডের দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামের প্ল্যানারি সেশনে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে বিতর্ক হয়েছে। সেমিনারে মার্কিন পরিবেশবিদ আল গোরসহ বিশ্ব পরিবেশবিদেরা রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন না করার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের বলেন, সুন্দরবনের রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের কারণে পরিবেশের ওপর কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে না।

রিজভী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী রামপাল নিয়ে যা বলেছেন, তাতে মনে হচ্ছে সরকার প্রধান জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সকল বিশেজ্ঞদের অভিমতকে থোড়াই কেয়ার করেন। দেশকে দোজখে পরিণত করার লক্ষ্য পূরণই হচ্ছে তার পরিকল্পনা। ওই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী যে তথ্য দিয়েছেন, তা সঠিক নয়।’

তিনি বলেন, ‘রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে অনড় সরকার। আগামী এক মাসের মধ্যে এ বিষয়ক আর্থিক চুক্তি সম্পন্ন হবে বলে বলা হচ্ছে। কোনো অবস্থাতে সরকার তা থেকে সরে আসবে না। আন্তর্জাতিক সংগঠন ও মহলের সমালোচনা সত্ত্বেও রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্রের নির্মাণ বন্ধ করবে না সরকার।’

বাংলাদেশের উপকূল রক্ষা সুন্দরবনের অবদান উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, সুন্দরবন বাংলাদেশের অস্তিত্বের অংশ। ঐ অঞ্চলের পাঁচ কোটি মানুষের রক্ষাকবচ সুন্দরবন। দেশের সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক বন ও সবচেয়ে বড় সুরক্ষা প্রাচীর সুন্দরবন সরকার ইচ্ছা করে বিনাশ করছে।

তিনি বলেন, শুধু মুনাফাখোর আর দেশি-বিদেশি লুটেরাদের স্বার্থে নির্মল বাতাসকে বিষাক্ত করা হবে এই সুন্দরবনবিনাশী রামপাল বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের মাধ্যমে।

জনগণ রামপাল প্রকল্প হতে দেবে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘অগণতান্ত্রিক তাবেদার শক্তি শুধু প্রভুদের মন রক্ষায় এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গেলে স্লোগানে-মিছিলে উদ্বেল হয়ে সকল বাধা অতিক্রম করে দেশপ্রেমিক জনগণ আরেকটি মুক্তিযুদ্ধ শুরু করবে। আমরা আশা করব, গণমাধ্যম সুন্দরবন বাঁচানোর এই আন্দোলনে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে।’

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ