Home > রাজনীতি > শামীম ওসমানের ফাঁকা আওয়াজ!

শামীম ওসমানের ফাঁকা আওয়াজ!

‘শনিবার থেকে দেখবেন আওয়ামী লীগের তেজ, বিএনপিকে তো খুঁজেই পাওয়া যাবে না।’ একদিন আগে শুক্রবার (৯ ডিসেম্বর) এমন ঝাঁঝালো বক্তব্য দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জের প্রভাবশালী এমপি শামীম ওসমান। পরদিন শনিবার সকাল থেকে তাই এই বক্তব্যের প্রতিফলন দেখার অপেক্ষায় ছিল নারায়ণগঞ্জবাসী। কারণ শামীম ওসমান প্রায়ই বিভিন্ন সভা সমাবেশে বলে থাকেন, ‘আমি ডাকলে লাখো জনতা কয়েক দিনেই সমবেত করতে পারি, এক ঘণ্টায় হাজার হাজার নেতাকর্মী জমায়েতের ক্ষমতাও আমার আছে।’ কিন্তু তার বক্তব্যের প্রতিফলন ঘটেনি শনিবার। শামীম ওসমানের বক্তব্যের পর অনেকেই অনুমান করেছিল যে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই থাকবে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনের মাঠ। কিন্তু বাস্তবে ছিল তার একেবারেই ভিন্ন চিত্র। বরং শনিবার সকাল থেকেই নারায়ণগঞ্জ শহর ও সিটি করপোরেশনের সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকায় দোর্দণ্ড দাপটে নির্বাচনি মাঠ কাঁপিয়েছে বিএনপি।

শনিবার সকাল থেকেই বিএনপির দাপট ছিল সিটি করপোরেশন নির্বাচনি এলাকাতে। কেন্দ্রীয় নেতাদের পদভারে মুখরিত ছিল পুরো সিটি করপোরেশন এলাকা। বিপরীতে আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাদের মধ্যে তেমন কোনও আগ্রহ দেখা যায়নি। যদিও নেতারা বিচ্ছিন্নভাবে গণসংযোগ করেছেন। ফলে শামীম ওসমানের শুক্রবারের দেওয়া ঘোষণার আদৌ কতটুকু প্রতিফলন ঘটবে সেটা নিয়েও উঠেছে নানা প্রশ্ন। শুধু কী রাজনৈতিক কারণে, নাকি সত্যিকার অর্থেই সেলিনা হায়াৎ আইভীর জন্য শামীম ওসমান  মনপ্রাণ দিয়ে কাজ করবেন সেই প্রশ্নও দেখা দিয়েছে অনেকের মনে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, শনিবার সকাল ৯টা থেকেই শহরের ডিআইটি বাণিজ্যিক এলাকায় জেলা বিএনপির কার্যালয়মুখী ছিল বিএনপি নেতাকর্মীদের স্রোত। নগরের বিভিন্ন ওয়ার্ডের পাশাপাশি মহানগরের বাইরে ফতুল্লা, রূপগঞ্জ, আড়াইহাজার থেকেও প্রচুর নেতাকর্মী এসে সমবেত হয় কার্যালয়ের সামনে। বেলা ১১টায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ২০ দলীয় জোটের নেতাদের সঙ্গে নিয়ে যখন কার্যালয়ের সামনে আসেন, তখন শহরের প্রধানতম বঙ্গবন্ধু সড়কের পশ্চিম পাশে যান চলাচল বন্ধ ছিল। ১২টার দিকে মির্জা ফখরুলে নেতৃত্বে মিছিল বের হয়ে দুই নং রেল গেটস্থ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে দিয়েই শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। দুপুরে সিদ্ধিরগঞ্জে যান বিএনপির মহাসচিব। এছাড়া রাজশাহীর সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনু, রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ কেন্দ্রীয় নেতারা শহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন।

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপিকে বেশ কড়া ভাষায় হুঁশিয়ারি দেন শামীম ওসমান। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের একটি বক্তব্যের রেশ ধরে বিএনপির প্রতি রীতিমতো চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন তিনি। ‘নৌকা শীতলক্ষ্যায় ডুবে যাবে’ এমন বক্তব্য নিয়ে ক্ষোভ ঝরে পড়ে শামীম ওসমানের কণ্ঠে। তিনি সাফ বলে দেন, ‘নৌকা ডুববে না, বরং বিএনপিকেই খুঁজে পাওয়া যাবে না।’

সংবাদ সম্মেলনে শামীম ওসমান বলেন, ‘বিএনপির প্রার্থীদের বলতে চাই, ধানের শীষ প্রতীক আপনাদের আর রাখা উচিত না। আপনারা প্রতীক বদলান। কারণ আপনারা যখন ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ক্ষমতায় এসেছিলেন, তখন এই বাংলাদেশের কৃষক ধান চাষের সারের জন্য মরেছে। বিএনপির নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন আইভীর নৌকা ডুবে যাবে। আবার কখনো বলেছেন আইভীর ভাঙ্গা নৌকা। এটা খুব দুঃখজনক। উনারা হয়তো ভুলে গেছেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের জন্মস্থান। মনে রাখতে হবে এটা আইভীর নৌকা না, এটা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকা, বঙ্গবন্ধুর নৌকা, আওয়ামী লীগের নৌকা। নৌকা যখন ডুবানোর কথা হয় তখন আমাদের মাথায় রক্ত উঠে যায়। আগামীকাল (শনিবার) থেকে টের পাবেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের কী তেজ!  আইভীর বিজয় সুনিশ্চিত করা আমাদের পক্ষ থেকে হবে আইভীর জন্য সারপ্রাইজ। আর এ বিজয় কনফার্ম। আগামীকাল থেকে প্রতিটি অলিতে-গলিতে মানুষের পায়ে হাত দিয়ে আমার নেতাকর্মীরা নৌকার পক্ষে ভোট চাইবে।’

তবে শামীম ওসমানের এমন ঘোষণার পরদিন শনিবার সকাল থেকে শহরের দুই নং রেল গেটস্থ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উল্লেখযোগ্য কাউকে দেখা যায়নি। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাইকে বেলা ১২টায় অল্প সময়ের জন্য দেখা গেছে। তবে বেলা সাড়ে ১২টার দিকে কার্যালয়ের দায়িত্বে থাকা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট আনিছুর রহমান দিপু ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাতকে দেখা গেছে।

শনিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত সিটি করপোরেশনের ১৯নং ওয়ার্ডের মদনগঞ্জ, শান্তিনগর এলাকায় নৌকার পক্ষে প্রচারণা চালান আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান নওফেল, ২৫ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা। কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলিও প্রচারণা করেন। সকালে আইভী ৯নং ওয়ার্ড এলাকায় গেলে সেখানে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুর রহমান, সহ-সভাপতি মোঃ সাদেকুর রহমান, সাধারণ সম্

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ