Home > রাজনীতি > মাহিদুর ও চুটুর আমৃত্যু কারাদণ্ড

মাহিদুর ও চুটুর আমৃত্যু কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
জনতার বাণী,
ঢাকা: একাত্তরের
মানবতাবিরোধী
অপরাধের তিনটির মধ্যে
দুটি অভিযোগ প্রমাণিত
হওয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ
শিবগঞ্জের মাহিদুর
রহমান এবং আফসার হোসেন
চুটুকে আমৃত্যু
কারাদণ্ড দিয়েছে
ট্রাইব্যুনাল।
বুধবার সকালে
চেয়ারম্যান বিচারপতি
ওবায়দুল হাসানের
নেতৃত্বে তিন সদস্যের
আন্তর্জাতিক অপরাধ
ট্রাইব্যুনাল-২ এই রায়
দেয়। ট্রাইব্যুনালের
অপর দুই সদস্য বিচারপতি
মুজিবুর রহমান মিয়া ও
বিচারপতি শাহিনুর
ইসলামও এ সময় উপস্থিত
ছিলেন।
১৩৩ পৃষ্ঠার এই রায়ে বলা
হয়, প্রসিকিউশনের আনা
তিনটি অভিযোগের
মধ্যে প্রথমটিতে দুই
আসামিকে
সর্বসম্মতভাবে আমৃত্যু
কারাদণ্ড দিয়েছেন তিন
বিচারপতি।
দ্বিতীয় অভিযোগে
মাহিদুর রহমান ও আফসার
হোসেন চুটুকে দেওয়া
হয়েছে পাঁচ বছরের জেল।
আর তৃতীয় অভিযোগে এর
আগে দালাল আইনে তারা
দণ্ডিত হওয়ায় ওই
অভিযোগটি বাদ দেওয়া
হয়েছে। তৃতীয়
অভিযোগের ক্ষেত্রে
তদন্ত কর্মকর্তা
অদক্ষতার পরিচয়
দিয়েছেন বলেও রায়ে
উল্লেখ করা হয়।
মাহিদুর ও আফসার
একাত্তরে মুসলিম
লীগের রাজনীতিতে
জড়িত ছিলেন।
মুক্তিযুদ্ধ শুরুর পর
বাংলাদেশের
স্বাধীনতার বিরোধিতা
করে রাজাকার
বাহিনীতে যোগ দিয়ে
তারা শিবগঞ্জ এলাকায়
যেসব মানবতাবিরোধী
অপরাধ ঘটান, তা উঠে
এসেছে এই রায়ে।
আজকের এই রায়ের মধ্য
দিয়ে ট্রাইব্যুনালে এ
পর্যন্ত আসা ১৮টি
যুদ্ধাপরাধের মামলায়
২০ আসামির মধ্যে ১৩
জনের ফাঁসির রায়
এসেছে। তাদের মধ্যে
দুইজনের মৃত্যুদণ্ড
সর্বোচ্চ আদালতের
রায়ের পর কার্যকর করা
হয়েছে।
এর আগে সকাল আটটার
দিকে ঢাকা কেন্দ্রীয়
করাগার থেকে দুই
আসামিকে
ট্রাইব্যুনালে হাজির
করা হয়।
রায় ঘিরে ট্রাইব্যুনাল,
সুপ্রিমকোর্ট ও এর
আশপাশের এলাকায়
স্বাভাবিক নিরাপত্তা
চিল। যেমনটি জামায়াতে
ইসলামী নেতাদের রায়
ঘিরে নিরাপত্তার
চাদরে ঘিরে দেয়া হয়,
তেমনটি চোখে পড়েনি।
তবে রমনা বিভাগের
পুলিশের সিনিয়র সহকারী
কমিশনার শিবলি নোমান
সাংবাদিকদের জানান,
রায় ঘোষণাকে কেন্দ্র
করে যে কোনো ধরনের
অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে
পর্যাপ্ত ব্যবস্থা
নেওয়া হয়েছে।
গত ২২ এপ্রিল
রাষ্ট্রপক্ষের পাল্টা
যুক্তি উপস্থাপন শেষে
ট্রাইব্যুনাল মামলাটি
রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ
রাখে। আর গতকাল
মঙ্গলবার রায়ের জন্য
আজকের এই দিন ধার্য
করে।
গত ২৭ জানুয়ারি থেকে ৭
এপ্রিল পর্যন্ত মাহিদুর
ও আফসারের বিরুদ্ধে
সাক্ষ্য দেন মামলার
তদন্ত কর্মকর্তা (আইও)
জেডএম আলতাফুর রহমানসহ
প্রসিকিউশনের মোট ১০ জন
সাক্ষী। তবে মাহিদুর ও
আফসারের পক্ষে কোনো
সাফাই সাক্ষী ছিলেন
না।
এর আগে মাহিদুর রহমান ও
আফসার হোসেন চুটুর
বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন
করে গত বছর ১ ডিসেম্বর
আদেশ দেয়
ট্রাইব্যুনাল। তাদের
বিরুদ্ধে অনুষ্ঠানিক
অভিযোগ গত ২৪ নভেম্বর
আমলে নেয়
ট্রাইব্যুনাল।
মাহিদুর রহমান ও আফসার
হোসেন চুটুর বিরুদ্ধে
গত বছরের ১৬ নভেম্বর
আনুষ্ঠানিক অভিযোগ
দাখিল করে প্রসিকিউশন।
প্রসিকিউটর সাহিদুর
রহমান এ অভিযোগ দাখিল
করেন।
ওইদিন তাদের
মানবতাবিরোধী
অপরাধের এ মামলায় আটক
দেখানোর জন্য
প্রসিকিউশন আবেদন
করেছিল। ২৪ নভেম্বর এ
আবেদন মঞ্জুর করে
ট্রাইব্যুনাল।
তিনটি মানবতাবিরোধী
অপরাধের অভিযোগে
মাহিদুর রহমান ও মো.
আফসার হোসেন চুটুর
বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন
করা হয়। অভিযোগ তিনটি
হলো;
প্রথম অভিযোগে বলা
হয়েছে, ১৯৭১ সালের ৬
অক্টোবর সকাল ছয়টা
থেকে পরদিন ৭ অক্টোবর
সন্ধ্যা পর্যন্ত মো.
মাহিদুর রহমান ও মো.
আফসার হোসেন চুটুর
সহযোগিতায় রাজাকার ও
পাকিস্তানি
সেনাবাহিনী
চাঁপাইনবাবগঞ্জ
জেলার শিবপুর থানার
চাঁদশিকারী,
চামাটোলা, বিনোদপুর
উচ্চ বিদ্যালয়,
চাঁদশিকারী গ্রাম
থেকে ২০০ গজ পশ্চিমে
ফিরোজের আম বাগান
এবং কবিরাজটোলায় যৌথ
আক্রমণ চালায়। তারা এসব
গ্রামের ৩৯ জনকে আটক
করে। কাউকে কাউকে
অপহরণ করে। এক পর্যায়ে
নির্যাতনের পর ৩৯ জনের
মধ্য থেকে ২৪ জনকে
হত্যা করে।
দ্বিতীয় অভিযোগে বলা
হয়েছে, ১৯৭১ সালের ১৩
অক্টোবর দুপর একটা
থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত
মো. মাহিদুর রহমান ও মো.
আফসার হোসেন চুটুর
সহযোগিতায় রাজাকার ও
পাকিস্তানি
সেনাবাহিনী
চাঁপাইনবাবগঞ্জ
জেলার শিবপুর থানার
এরাদত বিশ্বাসের টোলা
এবং কবিরাজটোলা
গ্রামে যৌথ আক্রমণ
চালায়। এদিন তারা এ দুই
গ্রামের ৭০টি বাড়িতে
লুণ্ঠনের পর
অগ্নিসংযোগ করে।
আর তৃতীয় অভিযোগে
বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২
নভেম্বর দুপর দুইটা
থেকে পরদিন ৩ নভেম্বর
রাত পর্যন্ত মো.
মাহিদুর রহমান ও মো.
আফসার হোসেন চুটুর
সহযোগিতায় রাজাকার
বাহিনী আক্রমণ চালিয়ে
চাঁপাইনবাবগঞ্জ
জেলার শিবগঞ্জ থানার
শেরপুর ভাণ্ডার
(লক্ষীপুর), আদিনা
ফজলুল হক ডিগ্রি কলেজ,
শিবগঞ্জ সিও ডেভ অফিস
এবং উপজেলা পরিষদ
সংলগ্ন ইয়াকুব
বিশ্বাসের আমবাগান
এলাকার চার জনকে অপহরণ
করে আটকের পর নির্যাতন
চালিয়ে হত্যা করে।
এছাড়াও বিভিন্ন বাড়ি-
ঘরে লুণ্ঠন ও
অগ্নিসংযোগ করা হয়।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ