Home > রাজনীতি > কাপাসিয়ার ঘটনায় বিএনপির মুখে কুলুপ কেন: কাদের
ফাইল ফটো

কাপাসিয়ার ঘটনায় বিএনপির মুখে কুলুপ কেন: কাদের

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ধর্ষণের ঘটনায় বিএনপির ছাত্রসংগঠনের সাবেকরা জড়িত থাকার খবরে দলটির নেতারা মুখে কুলুপ এঁটেছেন কেন? এমন প্রশ্ন রেখেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

শনিবার (১০ অক্টোবর) আওয়ামী লীগ গাজীপুর শাখার বর্ধিত সভায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এ কথা বলেন তিনি। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সংসদ ভবন এলাকায় নিজের সরকারি বাসভবন থেকে যুক্ত হন।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তারা কী বিএনপি এবং তাদের ছাত্র সংগঠনের ধর্ষণকারীদের রক্ষা করতে চান? তারা আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে নিতে সরকারের পতন চান এখন।’

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে সহিংস করার অপচেষ্টা করছে বিএনপি এমন অভিযোগ করে কাদের বলেন, ‘সরকার সজাগ রয়েছে। যারা ষড়যন্ত্রকারী, গুজব রটনাকারী তাদের চিহ্নিতকরার কাজ চলছে। আন্দোলনের নামে কোনো ধরনের অস্থিরতা ও সন্ত্রাস সৃষ্টির অপপ্রয়াস জনস্বার্থে সরকার কঠোর হস্তে দমন করবে।’

এ সময় দলীয় নেতাকর্মীদের অপরাধী-সন্ত্রাসী এবং মাদকসেবীদের দলের আশ্রয়-প্রশ্রয় না দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘দলের কমিটি গঠনে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করতে হবে। অপরাধের সঙ্গে জড়িত কেউ যেন কমিটিতে ঠাঁই না পায়। খারাপ লোকদের দিয়ে দল ভারী করা যাবে না। খারাপ লোকেরা উন্নয়ন ও অর্জনকে ম্লান করে দেবে।’

এসব বিষয়ে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকতে হবে জানিয়ে আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘ইদানিং ধর্ষণ সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান খুবই কঠোর হলেও কোথাও কোথাও কিছু দুষ্কৃতিকারী অপকর্ম করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে মন্ত্রিসভায় কঠোর শাস্তির বিধান রেখে আইন সংশোধনের প্রস্তাব আসছে।’

ধর্ষণবিরোধী আন্দোলনে ভর করে স্বার্থান্বেষী রাজনৈতিক গোষ্ঠী যাতে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে না পারে সেদিক সজাগ দৃষ্টি রাখারও আহ্বান জানান তিনি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার শুধু ধর্ষণ আর নারীর প্রতি সহিংসতাই নয়, যে কোনো অন্যায় অপকর্মের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে। ইতোমধ্যে আপনারা দেখেছেন, প্রতিটি ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আনা হয়েছে বিচারের আওতায়। শেখ হাসিনা সরকার অপরাধীদের প্রশ্রয় দেয় না।’

‘কাসিনোবিরোধী অভিযান থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যখাতের অনিয়ম রুখতে যে শুদ্ধি অভিযান সরকার পরিচালনা করছে তা কারো দাবির পরিপ্রেক্ষিতে নয়, স্বপ্রণোদিত হয়েই করছে। দলীয় পরিচয়ও শেখ হাসিনার কাছে কোনো অপরাধীর রক্ষাকবচ হতে পারেনি এ পর্যন্ত। তাইতো এদেশের নারীদের আস্থার ঠিকানা শেখ হাসিনা ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আইন সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছেন।’

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ