Home > রাজনীতি > পাকিস্তানের ফাঁদে পা দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি

পাকিস্তানের ফাঁদে পা দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি

ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে প্রধান বিচারপতি পাকিস্তানের ফাঁদে পা দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) এর সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।
সোমবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ শহীদ কর্নেল তাহের মিলনায়তনে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জাসদ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ও বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেন, এ রায় উদ্দেশ্যমূলক। রায়ে সরাসরি স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার ১৯৭১ ও ৭৫ এর দোসরদের ষড়যন্ত্রের অংশ। ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করে রায়ের পর্যবেক্ষণে বঙ্গবন্ধুকে কটাক্ষ করা হয়েছে। সংসদকে ছোট করা হয়েছে। তিনি বলেন, ১৫ আগস্টের ঘটনা কলঙ্কজনক অধ্যায়। এটি আর আমরা দেখতে চাই না। একইসঙ্গে আগামীতে ৭১ এর স্বাধীনতা বিরোধীকারীরা ১৫ আগস্টের খুনিদের সঙ্গে কোনো আপস না করারও অঙ্গীকার করেন তিনি।

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন জাসদের সহ-সভাপতি মীর হোসাইন আক্তার, সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক মো. আনোয়ার হোসেন, জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান শওকত, জাসদ নেতা নুরুল আক্তার, জাসদের স্থায়ী কমিটির সদস্য নাদের চৌধুরী, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শাহ জিকরুল আহমেদ, ঢাকা মহানগর পূর্বের জাসদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি শফিউদ্দিন মোল্লা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করতে হলে তার কর্মকে স্মরণ করতে হবে। ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র তৈরি করতে হবে। ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এক ধরনের ষড়যন্ত্রের অংশ। এটা জনগণের ম্যান্ডেডকে অস্বীকার করা হয়েছে। সংসদকে অস্বীকার করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুকে কটাক্ষ করা হয়েছে। এ রায়ের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে।
তারা আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুকে শুধু সাত মেজর হত্যা করেননি। এর পেছনে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র ছিল। আওয়ামী লীগের ভেতরে ও বাহিরে ষড়যন্ত্র ছিল। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার নেতৃত্ব দিয়েছেন। এটি নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টির কোনো সুযোগ নেই। তাই ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় সংশোধন করার দাবি করেন বক্তরা।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ