Home > রাজনীতি > মুজাহিদের আপিলে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শুরু

মুজাহিদের আপিলে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি উপস্থাপন শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক
জনতার বাণী,
ঢাকা: একাত্তরের
মানবতাবিরোধী
অপরাধের মামলায়
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতে
ইসলামীর সেক্রেটারি
জেনারেল আলী আহসান
মোহাম্মদ মুজাহিদের
আপিল মামলায় যুক্তিতর্ক
উপস্থাপন শুরু করেছে
রাষ্ট্রপক্ষ।
মঙ্গলবার প্রধান বিচারপতি
সুরেন্দ্র কুমার সিনহার
নেতৃত্বাধীন আপিল
বিভাগের বেঞ্চে
অ্যাটর্নি জেনারেল
মাহবুবে আলম যুক্তি
উপস্থাপন শুরু করেন।
এর আগে মুজাহিদের পক্ষে
দ্বিতীয় দিনের মতো অংশ
নিয়ে যুক্তি উপস্থাপন শেষ
করেন তার আইনজীবী এস এম
শাহজাহান ও খন্দকার মাহবুব
হোসেন।
পরে খন্দকার মাহবুব হোসেন
সাংবাদিকদের বলেন,
আমরা এই মামলার বিভিন্ন
সাক্ষীর বক্তব্য পর্যালোচনা
করে দেখিয়েছি এই সব
সাক্ষীর ভিত্তিতে
মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া
যায় না। যে দুটি
অভিযোগে তাকে ফাঁসির
দণ্ড দেওয়া হয়েছে, এর
মধ্যে সাত নম্বর অভিযোগটি
আনুষ্ঠানিক অভিযোগই ছিল
না। এই অভিযোগটি
ট্রাইব্যুনাল আমলে নেননি।
এরপরও এতে ফাঁসি দেওয়া
হয়েছে।
অ্যাটর্নি জেনারেল
মাহবুবে আলম বলেন, আজ
আসামিপক্ষের যুক্তি
উপস্থাপন শেষ হওয়ার পর
রাষ্ট্রপক্ষ এক ও তিন নম্বর
অভিযোগের যুক্তি
দিয়েছে। কাল আবার
আমরা যুক্তি উপস্থাপন করব।
গত ১৮ মে রাষ্ট্রপক্ষে
আংশিক যুক্তিতর্ক উপস্থাপন
করেন অ্যাটর্নি জেনারেল
মাহবুবে আলম। এর আগে গত
২৯ এপ্রিল এবং ৪, ৫, ৬, ১৭ ও
১৮ মে আপিলে পেপারবুক
পাঠ শেষ করেন মুজাহিদের
আইনজীবী।
২০১৩ সালের ১৭ জুলাই
মুজাহিদকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ
দেয় মানবতাবিরোধী
অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। এ
রায়ের বিরুদ্ধে
মুজাহিদের পক্ষে আপিল
আবেদন করা হয় একই বছরের ১১
আগস্ট।
মুজাহিদের আপিলের অন
রেকর্ড হচ্ছেন—জয়নুল
আবেদিন তুহিন। মোট ৯৫
পৃষ্ঠার ১১৫টি গ্রাউন্ডে
আপিল আবেদন করা হয়। মূল
আবেদনের সঙ্গে ৩,৮০০
পৃষ্ঠার নথিপত্র সংযোগ করে
জমা দেয়া হয়েছে।
২০১০ সালের ২৯ জুন আলী
আহসান মোহাম্মদ
মুজাহিদকে গ্রেপ্তার করা
হয়। ২০১১ সালের ১১
ডিসেম্বর ডিসেম্বর তার
বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক
অভিযোগ দাখিল করে
প্রসিকিউশন। ২০১২ সালের
২৬ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক
অভিযোগ আমলে নেয়
ট্রাইব্যুনাল।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী
শিরোনামঃ