Home > জাতীয় > দক্ষিণ বঙ্গ হবে সিঙ্গাপুর : শিল্পমন্ত্রী

দক্ষিণ বঙ্গ হবে সিঙ্গাপুর : শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, দুই মেগা প্রকল্প পদ্মা সেতু ও পায়রা বন্দরের কাজ সম্পন্ন হলে দেশের দক্ষিণ বঙ্গের বৃহত্তর বরিশাল হবে সিঙ্গাপুর।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বরিশালের গ্র্যান্ড পার্ক হোটেলে অনুষ্ঠিত রাজস্ব সংলাপে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় শিল্পমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘জনগণের ব্যয় মানেই সরকারের আয়। আর সরকারের ব্যয় মানেই জনগণের আয়। তবে সরকারের ব্যয় না হলে কখনো জনগণের আয় হয় না। সরকার ব্যয় করে জনগণের দেওয়া করের টাকা থেকে। সুতরাং কর ফাঁকি দেওয়ার মানে হলো নিজেকে ফাঁকি দেওয়া। কারণ, সরকারের আর্থিক স্বচ্ছলতা না বাড়লে উন্নয়ন পরিকল্পনা নেওয়া সম্ভব হয় না।’

করদাতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘কর দিলে আপনাদের সাশ্রয়। আপনারাই লাভবান হবেন। সরকার কখনো নিজের লাভের জন্য কর নেয় না। বরং আপনারা যে কর দেন তার কয়েকগুণ বাড়িয়ে তা আপনাদের ফিরিয়ে দেয় সরকার। দেখুন, পদ্মা ব্রিজ বানাতে বাড়তি কোন সারচার্জ ও কর নিচ্ছে না সরকার। আপনাদের করের টাকায় সরকার বিভিন্ন পণ্যে ভর্তুকি দেয়। ন্যায্যমূল্যের চেয়ে কম মূল্যে এসব পণ্য কিনতে পারেন আপনারা।’

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বৃহত্তর বরিশালের উন্নয়নের জন্য গুরুত্ব সহকারে দুইটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করছেন। প্রকল্পের আওতায় পদ্মাব্রিজ ও পায়রা বন্দরের কাজ সম্পূর্ণ হলে বৃহত্তর বরিশাল হবে আমাদের দেশের সিঙ্গাপুর।’ সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার প্রতিটি প্রজেক্টের সঙ্গে শত শত পরিবারের জীবন জীবিকা জড়িত বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, ‘বর্তমানে স্কুল-কলেজের ছাত্র ছাত্রীদের কোন বই কিনতে হয় না। বিধবা, বয়স্ক, মুক্তিযোদ্ধাসহ বিভিন্ন ভাতা কয়েকগুন বাড়ানো হয়েছে। সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন প্রায় দ্বিগুন করা হয়েছে। এসব কিছু সম্ভব হয়েছে আর্থিক সক্ষমতা বাড়ার কারণে। সরকারের এ সক্ষমতা আরো বাড়াতে সঠিক হারে কর দেওয়ার কোন বিকল্প নেই। মনে রাখবেন ট্যাক্স দিলে আয় কমে না বরং বাড়ে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় সংসদের চীফ হুইপ আসম ফিরোজ বলেন, ‘বাংলাদেশের আর পেছনে ফিরে তাকানোর সময় নেই। ১০টি মেগা প্রকল্প ছাড়াও সরকার আরো ৭টি মেগা প্রকল্পের কাজ হাতে নিয়েছে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে সবাইকে রাজস্ব প্রদানে আগ্রহী হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমানে দেশের সংস্কৃতি পাল্টেছে। সন্তানরা পিতা মাতার কাছে জানতে চাইবে তারা ট্যাক্স দেয় কিনা। কারণ, তারা চায় স্বনির্ভর বাংলাদেশ।’

চীফ হুইপ বলেন, ‘আমরা ট্যাক্স দিতে চাই। ফাঁকি দিতে চাই না। তবে রাজধানী ঢাকার মত কর নির্ধারণ করলে হবে না। ঢাকার বাইরে বিভাগ, জেলা, উপজেলার জন্য কর স্তর সমন্বয় করতে হবে।’

সভাপতির বক্তব্যে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন, ‘দক্ষিণ বঙ্গের জন্য ইতিবাচক বার্তা নিয়ে আমরা এখানে এসেছি। সারা দেশের দৃষ্টি এখন দক্ষিণ বঙ্গের দিকে। কারণ, পদ্মাব্রিজ আর পায়রা বন্দর চালু হলে উন্নয়নের প্রাণকেন্দ্র হবে এই দক্ষিণ বঙ্গ।’

তিনি বলেন, ‘এনবিআরের উদ্ভাবনী ও ব্যতিক্রমী চিন্তাভাবনার ফসল হলো রাজস্ব সংলাপ। এই রাজস্ব সংলাপের মাধ্যমে প্রামাণ হয়েছে ব্যবসায়ীদের রাজস্ব দেওয়ার বিষয়ে কোন পিছুটান নেই। এনবিআর সরকারের রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪০ বাস্তবায়নে রাজস্ব আহরণ করছে। সকলের সহযোগিতায় রূপকল্প বাস্তবায়ন করে স্বনির্ভর বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা হবে।’

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ