Home > জাতীয় > বাংলাদেশ-কুয়েত ঋণ সহযোগিতাসহ ৪ চুক্তি সই

বাংলাদেশ-কুয়েত ঋণ সহযোগিতাসহ ৪ চুক্তি সই

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় (পিএমও) থেকে: বন্ধুপ্রতিম দুই দেশ বাংলাদেশ ও কুয়েতের মধ্যে উন্নয়ন সহযোগিতামূলক চারটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী শেখ জাবের আল সাবাহর উপস্থিতিতে দুই দেশের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও কর্মকর্তারা এতে স্বাক্ষর করেন।
বুধবার (৪ মে) বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ের চামেলী হলে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।
প্রথমেই স্বাক্ষরিত হয় বিনিয়োগ উন্নয়ন ও সুরক্ষা চুক্তি। বাংলাদেশের শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু এবং কুয়েতের শিক্ষামন্ত্রী ড. বদর আহমদ আল ইসা এ চুক্তিতে সই করেন। এরপর স্বাক্ষরিত হয় কূটনৈতিক ও অফিসিয়াল পাসপোর্টধারীদের ভিসা সহজীকরণ সংক্রান্ত চুক্তি। এতে সই করেন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোজাম্মেল হক খান ও কুয়েতের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদ সুলেইমান আল-জারাল্লাহ।
তারপর সই হয় সামরিক খাতে প্রশিক্ষণ ও অন্যান্য সহযোগিতা চুক্তিটি। এতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. মাহফুজুর রহমান ও কুয়েতের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদ সুলেইমান আল-জারাল্লাহ।
সবশেষে স্বাক্ষরিত হয় ঋণ সহায়তা চুক্তি। ‘বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে পায়রা নদীর ওপর লেবুখালী সেতু নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পে অর্থায়নের লক্ষ্যে কুয়েতের আরব অর্থনৈতিক উন্নয়ন ফান্ডের (কেফায়েদ) সঙ্গে স্বাক্ষরিত এ ঋণচুক্তিতে সই করেন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) অতিরিক্ত সচিব মাহমুদা বেগম ও কেফায়েদের মহাপরিচালক আবদুলওয়াহাব আল-বাদের।
এর আগে, বিকেল ৩টা ২০ মিনিটের দিকে প্রতিনিধি দল নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কার্যালয়ে পৌঁছান কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী। সেখানে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান শেখ হাসিনা। এর পরপরই দুই নেতা একান্ত বৈঠকে অংশ নেন। শিমুল হলে বৈঠকটি স্থায়ী হয় প্রায় ১৫ মিনিট। তারপর তারা প্রতিনিধিদের নিয়ে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে অংশ নেন। পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এতে আলোচনা হয়।
দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ছিলেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ ও জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক ই এলাহী চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব আবুল কালাম আজাদ, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম প্রমুখ।
কুয়েতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন দেশটির প্রথম উপ-প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ সাবাহ খালেদ আল-হামাদ আল-সাবাহ, অর্থ ও তেলমন্ত্রী আনাস খালেদ আল-সাবাহ, শিক্ষামন্ত্রী ড. বদর হামাদ আল-ইসা, উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদ সুলেইমান আল-জারাল্লাহ, কুয়েতের আরব অর্থনৈতিক উন্নয়ন ফান্ডের (কেফায়েদ) মহাপরিচালক আবদুলওয়াহাব আল-বাদেরসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা।
তিন দিনের সরকারি সফরে মঙ্গলবার (৩ মে) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা পৌঁছান শেখ জাবের আল-মুবারক আল-হামাদ আল-সাবাহ। তাকে বিমানবন্দরে অভ্যর্থনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেওয়া হয় লাল গালিচা সংবর্ধনা।
বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে সফরের মূল কার্যক্রম শুরু করেন কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী শেখ জাবের।
বিকেলে তিনি যাবেন জাতীয় সংসদে। সংসদের চলতি অধিবেশনের কার্যক্রম পরিদর্শন করবেন। সেখান থেকে শেখ জাবের যাবেন বঙ্গভবনে। এখানে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী। আর সন্ধ্যায় তার সৌজন্যে হোটেল সোনারগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা ও নৈশভোজের আয়োজনে অংশ নেবেন তিনি।
আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালেও থাকবে কুয়েতের প্রধানমন্ত্রীর একাধিক কর্মসূচি। এর মধ্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্মৃতি জাদুঘরে যাওয়ার কথা রয়েছে তার। তিন দিনের সফর শেষে কুয়েতের প্রধানমন্ত্রী ৫ মে বিকেলে ঢাকা ছাড়বেন।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ