Home > জাতীয় > মিয়ানমারে কারাভোগের পর দেশে ফিরল ১৪ বাংলাদেশি

মিয়ানমারে কারাভোগের পর দেশে ফিরল ১৪ বাংলাদেশি

নিজস্ব প্রতিবেদক
জনতার বাণী,
কক্সবাজার: মিয়ানমারের
কারাগারে বিভিন্ন
মেয়াদে কারাভোগের
পর ১৪ বাংলাদেশিকে
ফেরত পাঠিয়েছে দেশটির
সীমান্তরক্ষী বাহিনী
বর্ডার গার্ড পুলিশ
(বিজিপি)।
এদের মধ্যে ১১ জন
মালয়েশিয়াগামী
ট্রলারের যাত্রী, দু’জন
জেলে ও অপর একজন
অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করায়
আটক হন।
মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টা
থেকে দেড় ঘণ্টাব্যাপী
দু’দেশের সীমান্তরক্ষী
বাহিনীর মধ্যে পতাকা
বৈঠক শেষে তাদের ফেরত
আনা হয়।
মিয়ানমানমারের অভ্যন্তরে
উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী
বাহিনী বিজিবি ও
বিজিপির মধ্যে মংডুস্থ ১
নম্বর পয়েন্ট অব এন্ট্রি
অ্যান্ড এক্সিট এলাকায় এ
বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
বৈঠকে বাংলাদেশের ১৭
সদস্যের প্রতিনিধিদলের
নেতৃত্ব দেন টেকনাফ সদর
বিওপির কম্পানি কমান্ডার
মো. জাকারিয়া ও
মিয়ানমারের ১৪ সদস্যের
প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব
দেন জেলা কর্মকর্তা ইউ থুন
থুন।
বেলা পৌনে ১২টায় সদর
বিওপির মিলনায়তনে ৪২
বিজিবি ব্যাটালিয়নের
অধিনায়ক লে. কর্নেল
মো. আবুজার আল জাহিদ
সংবাদ সম্মেলনে জানান,
মিয়ানমারের সঙ্গে অত্যন্ত
সৌহার্দ্যপূর্ণ ও আন্তরিক
পরিবেশে দ্বিপক্ষীয়
আলোচনায় মানবপাচার ও
মাদক পাচারসহ সীমান্তে
বিভিন্ন বিষয়ের ওপর
আলোচনা হয়েছে।
তিনি আরো জানান,
মিয়ানমারের কারাগারে
বর্তমানে বাংলাদেশি
নাগরিকের সংখ্যা ও
তাদের সাজার মেয়াদ
শেষ হওয়া সম্পর্কে
মিয়ানমার কোনো তথ্য
সরবরাহ করেনি। তবে যথাযথ
কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে
তাদেরকে ফিরিয়ে আনার
চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
মিয়ানমারের কারাগারে
বিভিন্ন মেয়াদে সাজা
ভোগের পর ফেরত আসা
বাংলাদেশিরা হলেন—
কক্সবাজার জেলার
মহেশখালী থানার
দক্ষিণপাড়ার মৃত ছৈয়দ
আহমদের ছেলে আবদুর রহিম
(৩৪), উখিয়া উপজেলার
দক্ষিণ পালং খালী
গ্রামের বশির আহমদের
ছেলে জয়নাল উদ্দিন (৩৫),
শফিকুর রহমানের ছেলে
ওবায়দুল্লাহ (৩৫), নুর
হাশিমের ছেলে নুর কবির
(২৯), টেকনাফ উপজেলার
গোদারবিল গ্রামের
আবদুল শুক্কুরের ছেলে নুরুল
আমিন (৩৩), লেদা গ্রামের
কালু মিয়ার ছেলে মো.
ইউসুফ (৩২), নাজিরপাড়া
গ্রামের মৃত জাফর আলমের
ছেলে সৈয়দ আলম (২৯),
ঢাকার দোহার মকসুদপুর
গ্রামের বাবুল খানের
ছেলে রাজিব খান (৩৩),
চট্টগ্রাম লোহাগাড়ার
চরম্বা ওয়াহিদের পাড়ার
আবুল কাশেমের ছেলে
মো. জসিম (৩০),
সাতকানিয়া বাজালিয়া
গ্রামের বক্কর আলীর ছেলে
আবদুর রহিম প্রকাশ বদি (৩৫),
মো. ফজল কবিরের ছেলে
বাদশা মিয়া (৩৪),
বান্দরবানের
নাইক্ষ্যংছড়ির বাবলু
খিয়াং গ্রামের ইউমং
কো এর ছেলে ইউ ক্য মং
(২৮), আলীকদম উপজেলার
হাজী গোরামিয়া
পাড়ার মো. জামালের
ছেলে মো. আমিন (২৭) ও
ধলুপাড়া গ্রামের জাফর
আহমদের ছেলে মো. ইউনুস
(৩৩)।
ফেরত আসা টেকনাফের
লেদা গ্রামের মো. ইউছুফ
জানান, নাফ নদীতে মাছ
শিকারে গিয়ে তৎকালীন
নাসাকার হাতে আটক হয়ে
দীর্ঘ ছয় বছর পাঁচ মাস
কারাভোগ করেছেন
তিনি।
তিনি বলেন,আরো শত শত
বাংলাদেশি নাগরিক
মিয়ানমারের কারাগারে
মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে।
বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট
কর্তৃপক্ষের যথাযথ তৎপরতার
অভাবে তারা দেশে
ফিরতে পারছে না বলে
দাবি করেন তিনি।
ফেরত আসা
মালয়েশিয়াগামী যাত্রী
পালংখালীর জয়নাল
উদ্দিন জানান, ২০১২
সালের ২৫ জুন ৮০ জন
মালয়েশিয়াগামী
যাত্রীবোঝাই ট্রলার
টেকনাফের কাটাবনিয়া
ঘাট থেকে রওনা হয়ে
মিয়ানমারের আইনশৃঙ্খলা
রক্ষাকারী বাহিনীর
হাতে আটক হয়। ৩৬ মাস
কারাভোগের পর তাদের
দলের ১১ জন ফেরত আসলেও
বাকিদের ব্যাপারে
তিনি কিছুই জানেন না।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ