Home > জাতীয় > ‘অনেকের কাছে গেছি বিচারের জন্য, কেউ সহযোগিতা করেনি’

‘অনেকের কাছে গেছি বিচারের জন্য, কেউ সহযোগিতা করেনি’

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতাদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলা করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই ছাত্রী অভিযোগ করেছেন, মামলার আগে তিনি অনেকের কাছে বিচার চেয়েছেন, কিন্তু কেউ তাকে সাহায‌্য করেনি।

শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে এ অভিযোগ করেন তিনি। পাশাপাশি গণমাধ্যমকর্মীদের হাতে লিখিত বক্তব্য তুলে দেন ওই শিক্ষার্থী।

লিখিত বক্তব্যে ওই ছাত্রী বলেন, ‘আমি কোনো ব্যক্তি, সংগঠন কিংবা রাজনৈতিক দলের দ্বারা প্রভাবিত নই। আমার নামে যারা কুৎসা রটাচ্ছেন, তারা এটা প্রমাণ করতে না পারলে আমি তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে বাধ্য হবো৷ আসামিরা জনপ্রিয় দেখে কি সত্যটা মিথ্যা হয়ে যাবে? জনপ্রিয়রা কি অন্যায় করে না? ইতিহাস ঘাঁটলে দেখা যাবে, জনপ্রিয়তার আড়ালেই মানুষ সবচেয়ে বেশি নোংরামি করে। দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া একটি মেয়ে সর্বস্ব বিসর্জন দিয়ে মিথ্যা মামলা করতে পারে না।‘

তিনি আরও বলেন, ‘আমি অনেকের কাছে গেছি বিচারের জন্য, কেউ সহযোগিতা করেনি। আসামিরা নিজেরাই বারবার আমাকে আদালতে যাওয়ার মানসিক চাপ দেওয়ার পরও তারা কীভাবে এটাকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মামলা বলতে পারে? ভিপি নুর যে নীলক্ষেত যায়নি, সেটা সে প্রমাণ করুক। তার তো অনেক ক্ষমতা, আমি তো ভুক্তভোগী, অসহায়। যে লোকের (ভিপি নুর) কাছে অনেক আগেই বিচার দিয়েছিলাম, সে-ই এখন সেটাকে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মামলা বলে আন্দোলন করছে। আমার লজ্জা হচ্ছে যে, এরকম একজন মানুষকে আমি ভিপি পদে ভোট দিয়েছিলাম। আমি সব হারিয়ে বিচার দাবি করছি। বিচারে যদি কেউ গাফিলতি করেন বা অভিযুক্তদের আড়াল করে রাজনৈতিক খাতে প্রবাহিত করেন বা অভিযুক্তদের অন্যায়ভাবে সহায়তা করেন, তাহলে আমি আরো কঠোর হবো। আমি কি মানুষ না? আমার কি পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন,বন্ধু-বান্ধব নেই? দেশের সবাইকে আমি বলতে চাই, আপনারা অন্ধভাবে নয়, সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিবেচনা করুন। একটি অসহায় মেয়ে বার বার ঘুরেও ন‌্যায়বিচার না পেয়ে আইনের আশ্রয় নিয়েছে। আবার সেই মেয়েকেই লাঞ্ছিত করা হচ্ছে। মানসিকভাবে ভেঙে ফেলতে বিভিন্ন অপবাদ দিচ্ছে৷ এই লাঞ্ছনার বিনিময়ে হলেও আমি চাই, সুষ্ঠু ও সঠিক বিচার হোক, যেন এরকম জনপ্রিয় মুখোশধারীরা আমার মতো আপনার মেয়ে, বোন ও শুভাকাঙ্ক্ষীকে ধর্ষণ করতে না পারে।’

উল্লেখ্য, ধর্ষণের অভিযোগ তুলে গত ২১ সেপ্টেম্বর লালবাগ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন ওই শিক্ষার্থী। একই অভিযোগে তিনি রাজধানীর কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। সর্বশেষ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে শাহবাগ থানায় আরেকটি মামলা করেন। প্রতিটি মামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরসহ তার সহযোগীদের আসামি করা হয়।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ