Home > জাতীয় > ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবসেও প্রাইভেটকারের জ‌্যাম

ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবসেও প্রাইভেটকারের জ‌্যাম

‘হাঁটা ও সাইকেলে ফিরি, বাসযোগ‌্য নগর গড়ি’—এই প্রতিপাদ‌্যকে সামনে রেখে এবার পালিত হচ্ছে বিশ্ব ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবস। তবে, এই স্লোগানের সঙ্গে রাজধানীর সড়কগুলোর কোনো মিল পাওয়া যায়নি।

বিশ্ব ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবসে (২২ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর সড়কগুলোয় দেখা গেছে, অনেকেই প্রাইভেটকার নিয়ে বের হয়েছেন। আসাদ গেটে শতাধিক ব্যক্তিগত গাড়িকে সিগন্যাল ছাড়ার অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে।

এই সময় জানতে চাইলে আসাদ গেটে জ‌্যামে আটকেপড় প্রাইভেটকারের আরোহী মাসুদুর রহমান বলেন, ‘আজ যে ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবস, তা আমার জানা নেই। এছাড়া, কাজের জন্য বের হয়েছি। এখন গাড়ি বের না করে কোনো উপায় নেই।’

প্রাভেটকারচালক হামিদ মিয়া বলেন, ‘খাইতে হলে গাড়ি নিয়ে বের করতেই হবে। কিছুই করার নেই। তবে, মাইক্রোবাস নিয়ে অনেক সাহেব বের হয়েছেন। তাদের দেখা গেছে, কেবল রেস্টুরেন্টে খাওয়ার জন‌্যই রাস্তায় গাড়ি নিয়ে বের হয়েছেন। কেউ কেউ ব্যবসায়িক কাজে, কেউ কেউ চাকরির জন্যও বের হয়েছেন। তবে, এক গাড়িতে একজন বসলে ১০ জনের জন্য ১০টি গাড়ি লাগে। তাদের কারণেই তো রাস্তায় জ‌্যামের সৃষ্টি হয়।’

‘ঠিকানা’ বাসের যাত্রী মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘একটি বাসে মানুষ বসে ৩০-৪০ জন। আর একটি কারে বসেন ২-৩ জন। রাস্তায় অতিরিক্ত প্রাইভেটকারের কারণেই জ্যাম লাগে। বায়ুদূষণ তো আছেই।’
প্রসঙ্গত, প্রতিবছর ২২ সেপ্টেম্বর ‘ব্যক্তিগত গাড়িমুক্ত দিবস’ পালিত হয়। বিশ্বের অন‌্যান‌্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে।

সড়কে প্রাইভেটকারের ছড়াছড়ি
এ বছর দিবসটি উপলক্ষে আয়োজিত কর্মসূচিকে ভিন্নভাবে সাজানো হয়েছে। এরমধ্যে শিক্ষক-ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে হাঁটার ও সাইকেল চালানোর প্রতি উৎসাহিত করে রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। এছাড়া, ফেসবুক প্রোফাইল ফ্রেম তৈরি, ‘আমি ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করবো না’ মর্মে ক্যাম্পেইন ও অভিমত নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষের (ডিটিসিএ) নির্বাহী পরিচালক খন্দকার রাকিবুর রহমান বলেন, ‘ব্যক্তিগত গাড়ির ব্যবহার বাড়লে যানজট বাড়বে। যানজটের কারণে প্রতিদিন লাখ লাখ কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে। জ্বালানির অপচয় হচ্ছে, বাড়ছে দূষণ। প্রতিদিন যোগ হচ্ছে প্রায় ৪০টি নতুন ব্যক্তিগত গাড়ি। এছাড়া মোটরসাইকেলের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। ’

রাকিবুর রহমান বলেন, ‘যান্ত্রিক বাহনকে নিয়ন্ত্রণ করা গেলে যে বায়ু দূষণরোধ করা সম্ভব, তা করোনাকালে প্রমাণিত হয়েছে। এজন্যই সারাবিশ্বে পরিবেশবান্ধব নগর গড়ে তুলতে হাঁটা ও সাইকেলকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। ’

উল্লেখ‌্য, ১৯৬১ সালে প্রকাশিত সাংবাদিক ও লেখক ইয়ান জ্যাকবসের ‘দ‌্য ডেথ অ্যান্ড লাইফ অব গ্রেট আমেরিকান সিটিস’ বইয়ে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে প্রথম ধারণা দেওয়া হয়। এটি নগর পরিকল্পনায় দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ১৯৬২ সাল থেকে ডেনমার্কের কোপেনহেগেন শহরে সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ করে শুধু পথচারীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ