Home > জাতীয় > এক নারীর কথায় প্ররোচিত হয় হৃদয়

এক নারীর কথায় প্ররোচিত হয় হৃদয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে তাসলিমা বেগম রেনুকে গণপিটুনির সময় সেখানে থাকা অন্য এক নারীর কথায় প্ররোচিত হয়ে হামলায় অংশ নেয় হৃদয়।

বুধবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে হৃদয় জানিয়েছে, ঘটনার দিন তাসলিমা স্কুলে প্রবেশ করলে সেখানে থাকা এক নারী অভিভাবক তার পরিচয় এবং বাসার ঠিকানা জানতে চান। তাসলিমা ওই নারীকে তার ঠিকানা জানান। সে সময় ওই নারী তাসলিমাকে দেখিয়ে ‘ছেলেধরা’ বলে চিৎকার করেন। বিষয়টি হৃদয় দেখে। এরমধ্যে তাসলিমাকে স্কুলের একটি কক্ষে বন্দি করা হয়। দ্রুত খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। পাশের বাজারের হাজারো মানুষ মুহূর্তে সেখানে ভিড় জমায়। কিছু মানুষ স্কুলের ভেতরে ঢুকে তাসলিমাকে বের করে এনে গণপিটুনি দেয়। এতে তাসলিমার মৃত্যু হয়।

হৃদয় সবজি বিক্রি করত। সবজি বিক্রি শেষে স্কুলের কাছে সে দাঁড়িয়ে ছিল। তাসলিমাকে স্কুলে প্রবেশ করতে দেখেছিল সে।

হৃদয়ের মা-বাবা নেই। নানির কাছেই থাকত। ঘটনার পর সে যখন বুঝতে পারল, পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করবে, তখন নারায়ণগঞ্জে পালিয়ে যায়। হৃদয় নানিকে বলেছিল যেন তার সব পোশাক পুড়িয়ে ফেলা হয়।

এক প্রশ্নের জবাবে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, তাসলিমা এবং ওই নারী পূর্বপরিচিত কি না সেটা দেখতে হবে। ঘটনাটি পরিকল্পিত কি না তা ওই নারীকে জিজ্ঞাবাদের পর বলা যাবে। কারণ, তাসলিমাকে দেখে তিনিই প্রথম ‘ছেলেধরা’ বলেছিলেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জের ভুলতা থেকে হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা হয়। বাড্ডার ওই গণপিটুনিতে জড়িত থাকার অভিযোগে হৃদয়সহ সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ