Home > বিনোদন > ‘দেশের প্রতি তার প্রেমটা অন্য আট-দশজনের মতো ছিল না’

‘দেশের প্রতি তার প্রেমটা অন্য আট-দশজনের মতো ছিল না’

‘আজও কেন তোমার বুকে জ্বলছে আগুন, চলছে গুলি, মরছে মানুষ? সন্ত্রাসীদের হাতে কেন জিম্মি তুমি, স্বদেশ আমার মাতৃভূমি? কেন বিদ্যালয়ে ফুটছে বোমা? আজও কেন তোমার বুকে ঘুরছে তারা, একাত্তরের দালাল যারা? লাখো লাখো শহীদ কেন রক্ত দিলো, এই কী তাদের স্বপ্ন ছিল?’ ‘একাত্তরের মা জননী’ শিরোনামের গানে এসব প্রশ্নের জবাব চেয়েছেন জ্বালাময়ী এ গানের স্রষ্টা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। এসব প্রশ্নের উত্তর কতটা পেয়েছেন তা না বলেই আজ মঙ্গলবার সকালে পরপারে পাড়ি জমান এই মুক্তিযোদ্ধা, প্রখ্যাত গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক।

‘একাত্তরের মা জননী’ গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন রুনা লায়লা ও আগুন। এ গান ছাড়াও আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের বেশ কিছু গানে কণ্ঠ দিয়েছেন আগুন। তার মৃত্যুতে শিল্পাঙ্গণে বইছে বিষণ্ন বাতাস। তাকে নিয়ে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে রাইজিংবিডিকে আগুন বলেন, ‘বুলবুল চাচা একজন আধুনিক মানুষ ছিলেন। মৃত্যুকে ভয় পেতেন না। তার চিন্তাভাবনা অন্য আট-দশজনের মতো ছিল না। তিনি শান্তিতে থাকুন এটাই প্রত্যাশা করছি। তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি।’

আগুন আরো বলেন, ‘‘১৯৯৬ সালে ‘একাত্তরের মা জননী’ গানটি তৈরি হয়। আমি আর রুনা আন্টি গানটি গেয়েছিলাম। গানটি নিয়ে বিশেষ কিছু বলার প্রয়োজন বোধ করি না। কারণ বুলবুল চাচা নিজে একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। দেশের প্রতি তার প্রেমটা অন্য আট-দশজনের মতো ছিল না। তার কাছ থেকেও আমি দেশপ্রেম শিখেছি। দেশকে ভালোবাসা মানেই যে শুধু রাস্তায় মিছিল মিটিং করা এমন ভাবনার মানুষ বুলবুল চাচা ছিলেন না। দেশকে ভালোবাসার অনেক পথ রয়েছে।’’

তিনি আরো বলেন, ‘আমি বুলবুল চাচাকে চিনি জন্মের পর থেকেই। আমার বয়স যখন সাত-আট বছর। তখন থেকেই তিনি আমাকে বিটলস, জেট রোটাল-এর গান শুনতে বলতেন। তার সঙ্গে এসব নিয়ে কথা হতো খালাম্মার বাসায় (সাবিনা ইয়াসমিন)। এভাবেই বুলবুল চাচার সঙ্গে থাকার সুযোগ হয়েছে। এর পর তার অসংখ্য গানে কণ্ঠ দিয়েছি।’

আজ মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে হৃদরোগে আক্রান্ত হন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। এরপর মহাখালীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা জানান, হাসপাতালে পৌঁছানোর আগেই তিনি মারা গেছেন। তার মরদেহ বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হয়েছে। আগামীকাল বুধবার মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে এই কিংবদন্তিকে।

১৯৯৬ সালে মোহাম্মদ হান্নান পরিচালিত ‘বিক্ষোভ’ সিনেমায় ‘একাত্তরের মা জননী’ গানটি ব্যবহার করা হয়। এতে জুটি বেঁধে অভিনয় করেন সালমান শাহ-শাবনূর।

দেখুন : ‘একাত্তরের মা জননী’ গানটি।

 

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ