আবার জোর ধাক্কা খেল ইসলামাবাদ। এ বার সর্বক্ষণের মিত্র বেজিং-এর কাছ থেকে। ভারত-পাক দ্বন্দ্বে চিন পাকিস্তানের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দিয়েছে বলে যে দাবি পাকিস্তান করছে, সোমবার তাকে নস্যাৎ করে দিল চিনা বিদেশ মন্ত্রক। বেজিং-এর তরফে এ দিন স্পষ্ট করে জানান হল, ভারত-পাক দ্বন্দ্বে কোনও একটি দেশের পক্ষ নেওয়ার কথা চিন কোথাও বলেনি।

চিনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র গেং শুয়াং সোমবার জানিয়েছেন, কাশ্মীর প্রসঙ্গে চিন কোনও পক্ষ নিচ্ছে না। শুয়াং বলেন, ‘‘পাকিস্তান ও ভারত, দু’দেশেরই প্রতিবেশী এবং মিত্র হিসেবে আমরা আশা করব, তারা নিজেদের মতভেদ আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে নেবে, পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে রাখবে এবং দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি, সুস্থিতি ও উন্নতির লক্ষ্যে কাজ করবে।’’

পাক সংবাদমাধ্যম গত শনিবার জানিয়েছিল, পাকিস্তানে বহিরাগত আগ্রসন হলে (ভারত পাকিস্তানকে আক্রমণ করলে) চিন পাকিস্তানের পাশে থাকবে বলে লাহৌরে চিনা কনসাল জেনারেল য়ু বোরেন আশ্বাস দিয়েছেন। কাশ্মীর ইস্যুতে সব সময় চিন পাকিস্তানের পক্ষে রয়েছে বলেও নাকি বোরেন মন্তব্য করেছেন। পাক পঞ্জাব প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ভাই শাহবাজ শরিফকে বোরেন এই আশ্বাস দিয়েছেন বলে পাক মিডিয়া জানিয়েছিল। শাহবাজ শরিফের দফতর সূত্রেই সে কথা পাক মিডিয়াকে জানানো হয়েছিল। বেজিং কিন্তু সোমবার সে প্রসঙ্গে পাকিস্তানকে বেজায় অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছে। য়ু বোরেনের মন্তব্য প্রসঙ্গে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র এ দিন জানান, এমন কোনও আশ্বাসের কথা তাঁর জানা নেই। কাশ্মীর প্রসঙ্গে গেং শুয়াং-এর স্পষ্ট বক্তব্য, ‘‘এটা একটা ঐতিহাসিক ইস্যু এবং আমরা বিশ্বাস করি সংশ্লিষ্ট সব পক্ষ শান্তিপূর্ণ ভাবে এবং সঠিক পথে নিজেদের মধ্যে আলাপ-আলোচনা চালিয়ে এই সমস্যার সমাধান করবে।’’

কাশ্মীর নিয়ে উত্তেজনা চরমে পৌঁছনোর পর একাধিক বার পাক মিডিয়া দাবি করেছে, এই বিরোধে পাকিস্তানের পাশে রয়েছে চিন। কিন্তু এক সপ্তাহের মধ্যে দু’বার বিবৃতি দিয়ে চিন পাক মিডিয়ার সেই দাবি নস্যাৎ করে দিল। এর আগে পাকিস্তানের মিডিয়া জানিয়েছিল, নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রপুঞ্জের অধিবেশনের ফাঁকে চিনা প্রধানমন্ত্রী লি খছিয়্যাং এবং পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বসেছিলেন, সেখানেও চিন কাশ্মীর ইস্যুতে পাকিস্তানের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু তার পর চিনা বিদেশ মন্ত্রক বিবৃতি প্রকাশ করে জানিয়েছিল, লি তেমন কোনও আশ্বাস নওয়াজকে দেননি। সোমবার ফের ইসলামাবাদ ধাক্কা খেল বেজিং-এর কাছ থেকে। এক সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় বার পাকিস্তানের দাবি উড়িয়ে দিয়ে চিন জানাল, ভারত-পাক দ্বন্দ্বে কোনও পক্ষ নেওয়ার ইচ্ছা চিনের নেই।