Home > আন্তর্জাতিক > কনডম নিয়ে ভারতে প্রথম সমীক্ষা

কনডম নিয়ে ভারতে প্রথম সমীক্ষা

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণ ও যৌনস্বাস্থ্য রক্ষায় কনডম ব্যবহার জরুরি। কিন্তু খুব কম মানুষেরই কনডম সম্পর্কে সঠিক ধারণা রয়েছে। সেই বিষয়টি মাথায় রেখে ভারতে প্রথমবারের মতো কনডম সমীক্ষা করা হয়েছে। কনডম নিয়ে যাদের বড় অংশীদারিত্ব রয়েছে এবং কনডম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠাগুলি মিলে গঠিত ‘কনডম অ্যালায়েন্স’ এই সমীক্ষা চালিয়েছে।

‘কনডমোলজি’ শব্দবন্ধটি এসেছে ‘কনজিউমার’, ‘কনডম’ এবং ‘সাইকোলজি’র সমন্বয়ে। অ্যালায়েন্সের প্রতিবেদনের শিরোনাম- ‘ভারতের তরুণদের সুস্বাস্থ্যের উন্নতি করতে কনডম বাজার এবং অন্যান্য অংশীদারদের অবদান’।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের কনডম ব্যবহারের হার এই মুহূর্তে ৫ দশমিক ৭ শতাংশ। ২০ থেকে ২৪ বছরের মধ্যে ৮০ শতাংশ পুরুষ জানিয়েছেন, সহবাসের সময় তারা কনডম ব্যবহার করেন না। মাত্র ৩ শতাংশ নারী কনডম ব্যবহারে উৎসাহী থাকেন। আর ১৩ শতাংশ পুরুষ সহবাসের সময় কনডম ব্যবহারে ইচ্ছুক থাকেন।

এতে বলা হয়েছে, গর্ভনিরোধকদের সম্পর্কে সচেতনতা ছড়িয়ে দিতে সরকারি উদ্যোগে প্রচার চালানো সত্ত্বেও, ভারতের কনডম বাজারে গত কয়েক বছরে যৌগিক বার্ষিক বৃদ্ধির হার (সিএজিআর) মাত্র ২ শতাংশ বেড়েছে। এই হার বিশ্বব্যাপী তথ্যের সঙ্গে ভারতীয় যুবকদের গর্ভনিরোধক ব্যবহারের তথ্যের ফারাক তৈরি করেছে, যাতে সাংস্কৃতিক ও সামাজিক পার্থক্যের ভূমিকা রয়েছে। অথচ এইচিআইভি আক্রান্তের দিক থেকে ভারত সারা বিশ্বের মধ্যে তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

কনডম অ্যালায়েন্সের সদস্য রবি ভাটনগর জানিয়েছেন, পাশ্চাত্যের দেশের তুলনায় ভারতের অধিকাংশ নাগরিকের ভাবধারায় বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। কনডম কেন ব্যবহার করা হয়, কখন কীভাবে ব্যবহার করা হয় সঠিক ধারণা নেই অনেকের। এর পাশাপাশি প্রয়োজন যৌন স্বাস্থ্য নিয়ে সঠিক শিক্ষা। কনডমের বিজ্ঞাপনের উপর বিভিন্ন বিধিনিষেধ আরোপ করায় মানুষের কাছে সঠিক ধারণা পৌঁছায় না।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী
শিরোনামঃ