Home > আন্তর্জাতিক > পাক-ভারত যুদ্ধে মারা যাবে ১২ কোটি মানুষ

পাক-ভারত যুদ্ধে মারা যাবে ১২ কোটি মানুষ

পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে পারমাণবিক যুদ্ধ বাধলে এক সপ্তাহেরও কম সময়ের মধ্যে মারা যাবে পাঁচ থেকে সাড়ে ‍১২ কোটি মানুষ। নিহতের এই সংখ্যা হবে ছয় বছর ধরে চলা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের তুলনায় কয়েক গুণ বেশি। এর পাশাপাশি বৈশ্বিক জলবায়ুতে পড়বে বিপর্যয়কর প্রভাব।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডো বোল্ডার এবং রাটগার্স ইউনিভার্সিটির যৌথ গবেষণায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বর্তমানে ভারত ও পাকিস্তানের কাছে ১৫০টি করে পারমাণবিক ওয়্যারহেড রয়েছে। ২০২৫ সাল নাগাদ এই সংখ্যা ২০০ ছাড়িয়ে যাবে।

ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডো বোল্ডারের অধ্যাপক ব্রিয়ান তুন বলেন, ‘ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধ বিশ্বে স্বাভাবিক মৃত্যুর হার দ্বিগুণ করবে। এটা এমন যুদ্ধ হবে যার কোনো নজির মানুষের কাছে নেই।’

গবেষণা প্রতিবেদনের সহলেখক রাটগার্স ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক অ্যালান রোবক বলেন, ‘এ ধরণের যুদ্ধ কেবল বোমা হামলার লক্ষ্যবস্তুর প্রতি হুমকি নয়, বরং পুরো বিশ্বের জন্য হুমকি।’

সায়েন্স অ্যাডভান্স নামের সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০২৫ সাল নাগাদ ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যেতে পারে। ২০২৫ সাল নাগাদ দেশ দুটির পারমাণবিক অস্ত্রের সংখ্যা সম্মিলিতভাবে ৪০০ থেকে ৫০০ হবে। দুই দেশেরই জনগোষ্ঠীর হার বাড়ছে। যুদ্ধ বাঁধলে দুই দেশেরই বিপুল পরিমাণ লোকক্ষয় হবে।

গবেষকদের মতে, পারমাণবিক অস্ত্রের বিস্ফোরণে ১৬ থেকে ৩৬ মিলিয়ন টন কালো ধোঁয়া বের হবে। কালো কার্বন কণাগুলো বায়ুমণ্ডলে ছড়িয়ে পড়বে এবং এক সপ্তাহের মধ্যে এগুলো পুরো বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে। এ কালো কণা সূর্যের তাপ শুষে নিবে। এই প্রক্রিয়ায় পৃথিবীতে সূর্যের আলো পৌঁছানো ২০ থেকে ৩৫ শতাংশ হ্রাস পাবে, যার ফলে ভূতলের তাপমাত্রা ২ থেকে ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস হ্রাস পাবে।

গবেষকদের মতে, ২০২৫ সালে পারমাণবিক অস্ত্রগুলোর বিস্ফোরণ ক্ষমতা ১৫ কিলোটন থেকে কয়েকশ কিলোটন পর্যন্ত হবে। এ ধরনের বোমার বিস্ফোরণে পাঁচ থেকে সাড়ে ১২ কোটি লোক সরাসরি বোমার প্রভাবে নিহত হবে। এছাড়া বিস্ফোরণের পরোক্ষ প্রভাব-ব্যাপক দুর্ভিক্ষে বিশ্বব্যাপী মারা যাবে কোটি কোটি লোক।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ