Home > তথ্য ও প্রযুক্তি > উদ্ভাবনী সংস্কৃতি গড়তে স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ : পলক

উদ্ভাবনী সংস্কৃতি গড়তে স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ : পলক

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, তরুণদের মধ্যে উদ্ভাবনী সংস্কৃতি তৈরি করতে দেশে দ্বিতীয়বারের মতো ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ আয়োজন করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, বিল গেটস থেকে শুরু করে মার্ক জাকারবার্গ- তাদের উদ্ভাবনী উদ্যোগগুলো শিক্ষার্থী থাকা অবস্থায় এসেছে। ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ আয়োজনের লক্ষ্য হচ্ছে, উদ্ভাবনী পরিকল্পনা আছে এমন তরুণ উদ্যোক্তা খুঁজে বের করা।

আজ রোববর রাজধানীর আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারে ‘উদ্ভাবন ও উদ্যোক্তা উন্নয়ন একাডেমী প্রতিষ্ঠাকরণ প্রকল্প (আইডিয়া)’ কার্যালয়ে ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় পর্বের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আইসিটি প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, বিশ্বের অনেকে দেশে তারুণ্যের সংকটে রয়েছে। আমরা সেখানে দারুণ এক অবস্থানে রয়েছি। আমাদের দেশের ৭ কোটির বেশি মানুষ বর্তমানে প্রাইমারি স্কুল থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে লেখাপড়া করছে। প্রতি বছর কর্মক্ষেত্রে নতুন করে যুক্ত হচ্ছে ২০ লাখ মানুষ। এখন আমাদের লক্ষ্য, তারুণ্যের শক্তিকে কিভাবে বাংলাদেশের সমৃদ্ধিতে আমরা ব্যবহার করতে পারব। কিন্তু এত মানুষ যদি শুধু চাকরি করে, তাহলে সরকারি বা বেসরকারি কোনো উদ্যোগেই কর্মসংস্থান প্রদান করা সম্ভব হবে না। সেজন্য সরকার এমন সংস্কৃতি তৈরি করতে যায় যেন তরুণরা চাকরি খোঁজার পরিবর্তে চাকরি দিতে পারে।

তিনি বলেন, আইডিয়া প্রকল্প থেকে আমরা ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ এই থিম নিয়ে কাজ শুরু করেছি গত বছর থেকে। গতবার ২ হাজার ২০০টি আবেদন পেয়েছিলাম আমরা। এতগুলো স্বপ্ন। গতবারের সেই সাফল্য থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে এটি আমাদের দ্বিতীয় আয়োজন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক পার্থপ্রতিম দেব বলেন, আইটি ও আইটিএস মার্কেট বিশাল এবং এখানে অফুরন্ত সম্ভাবনা রয়েছে। এই সম্ভাবনা কাজে লাগাতে হবে। আমরা একটি সংস্কৃতি তৈরি করতে চলেছি যেখানে উদ্যোক্তা তৈরি হবে, উদ্ভাবন হবে এবং এটি বাংলাদেশকে একটি অন্যরকম উচ্চতায় নিয়ে যাবে।

‘আইডিয়া প্রকল্প’ এর পরিচালক সৈয়দ মজিবুল হক বলেন, স্টার্টআপ ইনকিউবেশন এবং স্টার্টআপদের উন্নয়নের গতি বৃদ্ধি করার মাধ্যমে তাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা ও ফান্ডিং করা হবে আইডিয়া প্রকল্পের মাধ্যমে। ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ: অধ্যায় ২’ এর কার্যক্রমটির সফলভাবে সমাপ্তকারী টিমগুলো দেশের পরবর্তী সফল এবং বৃহৎ স্টার্টআপ হবে বলেও তিনি আশা করেন। তিনি শিক্ষার্থীদেরকে তাদের উদ্ভাবনী আইডিয়া নিয়ে স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করার আমন্ত্রণ জানান।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন, সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর সহযোগী সমন্বয়ক তন্ময় আহমেদ।

সারাদেশের শিক্ষার্থীরা অনলাইনে নিবন্ধনের মাধ্যমে এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে পারবেন। এছাড়াও দেশের ১০০টির বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থাপিত বুথের মাধ্যমেও রেজিস্ট্রেশন করা যাবে। রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম আজ থেকে শুরু হয়েছে। অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করা যাবে www.s2s.startupbangladesh.gov.bd ঠিকানা থেকে।

প্রাথমিকভাবে ২৫টি ভেন্যুতে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে এবং ৭৫টি প্রকল্প বাছাই করা হবে। সেখান থেকে বিজয়ী ১০টি স্টার্টআপের প্রতিটিকে ১০ লাখ টাকা করে অনুদান দেয়া হবে। সেই সঙ্গে শীর্ষ ৩০-এ থাকা অপর ২০ স্টার্টআপও রানারআপ হিসেবে আইডিয়া প্রকল্প থেকে গ্রুমিং ও বিশেষ প্রশিক্ষণ নেয়ার সুযোগ পাবে। প্রশিক্ষণ শেষে স্টার্টআপ গুলোপ্রস্তুত হলে তাদের জন্যও অনুদান প্রদান করবে আইডিয়া প্রকল্প।

‘আমার উদ্ভাবন, আমার স্বপ্ন’- এই স্লোগানকে সামনে রেখে জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতা ‘স্টুডেন্ট টু স্টার্টআপ’ আয়োজিত হবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের আওতায় বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এর অধীনে ‘আইডিয়া প্রকল্প’ এবং সিআরআই এর আওতাধীন দেশের শীর্ষস্থানীয় তরুণদের প্ল্যাটফর্ম ‘ইয়াং বাংলা’ এর সহযোগিতায়।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ