Home > তথ্য ও প্রযুক্তি > চাঁদে বরফ থাকার প্রমাণ মিলেছে

চাঁদে বরফ থাকার প্রমাণ মিলেছে

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : বিজ্ঞানীরা এবার শতভাগ নিশ্চিত হয়েছেন যে, চাঁদে বরফ রয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরেই বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস ছিল যে, চাঁদের মেরুর অন্ধকারাচ্ছন্ন অঞ্চলে জলীয় বরফ বিদ্যমান। অবশেষে ২০ আগস্ট, প্রসিডিংস অব ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সে প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্রে প্রমাণ নিশ্চিত করা হয়েছে।

চাঁদের মেরুতে সূর্যের আলো পৌঁছায় না, এই অঞ্চলগুলো গাঢ় অন্ধকার এবং অবিশ্বাস্য রকমের হিম শীতল। তাপমাত্রা সাধারণত মাইনাস ২৬০ ডিগ্রি ফারেনহাইট। অতীতে বিজ্ঞানীরা চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে বরফের সম্ভাবনার পরোক্ষ প্রমাণ পেয়েছিলেন, কিন্তু সেই পর্যবেক্ষণগুলোতে অন্যান্য ঘটনার কারণের আশঙ্কা ছিল।

চাঁদের মেরুতে বরফ রয়েছে তা বিজ্ঞানীরা এবার পুরোপুরি নিশ্চিত হয়েছেন, ২০০৮ সালে ভারতের চন্দ্রায়ন-১ মহাকাশযানের মাধ্যমে চাঁদে প্রেরিত নাসার মুন মিনারেলজি ম্যাপার অভিযানের এমথ্রি যন্ত্র কর্তৃক সংগৃহীত তথ্য বিশ্লেষণ করে। এমথ্রি হচ্ছে, একটি ইমেজিং স্পেকট্রোমিটার, যার হালকা তরঙ্গদৈর্ঘ্য পরিমাপের ক্ষমতা রয়েছে। এটি বিজ্ঞানীদের ‍উপকরণ গঠন সম্পর্কে জানিয়েছে। এমথ্রি বেশ সফল একটি যন্ত্র। ২০০৯ সালে চাঁদে পানি আবিষ্কারে বিজ্ঞানীদের সহায়তা করেছিল এমথ্রি।

প্রতিফলিত বৈশিষ্ট্য এবং আণবিক আলো শোষণের ওপর গভীর পর্যবেক্ষণ করে এমথ্রি নিশ্চিত ফলাফল দিয়েছে যে, চাঁদের মেরুতে জলীয় বরফ বিদ্যমান এবং চাঁদের উত্তর মেরুর তুলনায় দক্ষিণ মেরুতে জলীয় বরফের পরিমাণ বেশি, যেহেতু এই অঞ্চলটি বেশি অন্ধকারাচ্ছন্ন।

মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার আমেস রিসার্চ সেন্টার পরিচালিত নতুন এই গবেষণায় হাওয়াই এবং ব্রাউন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরাও ছিলেন।

চাঁদের মেরু পৃষ্ঠে জলীয় বরফ শনাক্ত হওয়াটা বলা যায় ভবিষ্যতে চন্দ্রাভিযানের ক্ষেত্রে মূল্যবান সম্পদ হিসেবে বিবেচিত হবে। কেননা এসব জলীয় বরফের নিচে পানির সন্ধান এবং চাঁদে অবস্থানের ক্ষেত্রে তা কাজে লাগবে।

তথ্যসূত্র : সিনেট

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ