Home > সারাদেশ > ট্রাক কেড়ে নিলো দুই কলেজছাত্রীর প্রাণ

ট্রাক কেড়ে নিলো দুই কলেজছাত্রীর প্রাণ

যশোরে ট্রাক চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী দুই কলেজ ছাত্রী নিহত ও মোটরসাইকেল চালক আহত হয়েছেন। সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে যশোর শহরের বকচর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহতরা হলেন যশোর সরকারি মাইকেল মধুসূদন (এমএম) কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্স শেষ পর্বের ছাত্রী ও মণিরামপুর উপজেলার দত্তকোনা গ্রামের আজিজুর রহমানের মেয়ে পপি পারভীন (২৫) ও একই গ্রামের নূর মোহাম্মদ গাজীর মেয়ে ও মণিরামপুর মহিলা কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী রুমেছা খাতুন (২০)। আহত মোটরসাইকেল চালক মণিরামপুর উপজেলার দত্তকোনা গ্রামের নাসির উদ্দিন গাজীকে (৪৫) যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের লাশ মর্গে রাখা হয়েছে।
নিহকদের স্বজন ও পুলিশ সূত্র জানায়, দুই মাস আগে পুলিশের চাকরির জন্য পুলিশ লাইনে সার্টিফিকেট জমা দিয়েছিলেন রুমেছা খাতুন। সোমবার সেই সার্টিফিকেট তুলতে যশোরে এসেছিলেন প্রতিবেশি চাচা নাসির উদ্দিনের মোটরসাইকেলে। তার সঙ্গে ছিলেন পপি পারভীন নামের অপর একজন কলেজছাত্রী। পপি কলেজের মাস্টার্স শেষ পর্বের ইনকোর্স পরীক্ষা দিতে এসেছিলেন শহরে। কাজ শেষে তারা তিনজন বিকেলে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে শহরের বকচর এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক মোটরসাইকেলটিকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলে একজন নিহত ও অপর একজনকে গুরুতর আহত অবস্থায় যশোর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু হয়। মোটরসাইকেল চালক নাসির উদ্দিন গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ছুটে যান সরকারি এমএম কলেজের উপাধ্যক্ষ প্রফেসর শফিউল আলম সরদারসহ রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক, কর্মচারী ও সহপাঠীরা। এরপর স্বজনরা এসে নিহতদের পরিচয় সনাক্ত করেন।
নিহত রুমেছা খাতুনের বোন কোহিনুর খাতুন বলেন, রুমেছা দুই মাস আগে পুলিশে চাকরির জন্য পুলিশ লাইনে যাচাই বাছাইয়ে অংশ নিয়েছিল। সেই সময় তার সাটিফিকেট জমা রাখা হয়। সেই সার্টিফিকেট তুলতে আজ শহরে এসেছিল। বাড়ি ফেরার পথে দুর্ঘটনায় মারা গেছে।
নিহত পপি আক্তারের দেবর মাসুদুজ্জামান বলেন, কলেজে ইনকোর্স পরীক্ষা দেয়ার জন্য এসেছিলেন। কলেজের কাজ শেষ করে তিনজন মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিল। পথিমধ্যে ট্রাকের চাপায় দুইজন মারা গেছে। বাকী একজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
যশোর সরকারি এমএম কলেজের উপাধ্যক্ষ শফিউল ইসলাম সরদার বলেন, নিহত দু’জনের মধ্যে একজন আমাদের কলেজের মাস্টার্স শেষ পর্বের শিক্ষার্থী। আর একজন মণিরামপুর মহিলা কলেজের সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তারা পরস্পর আত্মীয়। তাদের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।
যশোর কোতয়ালি থানার ওসি তারিকুল ইসলাম জানান, ট্রাকচাপায় দুই কলেজছাত্রী নিহত হয়েছেন। ঘাতক ট্রাকটি জব্দ করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় মামলা হয়নি।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ