Home > সারাদেশ > দূর্গাপুরে ক্ষেতে কারেন্ট জাল, মরছে উপকারী পাখি

দূর্গাপুরে ক্ষেতে কারেন্ট জাল, মরছে উপকারী পাখি

দুর্গাপুর প্রতিনিধি: রাজশাহীর দুর্গাপুরে সবজি খেতে পাতা কারেন্ট জালে আটকা পড়ে মারা যাচ্ছে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি। এদের মধ্যে বাদুড়, চামচিকা ও বুলবুলির সংখ্যাই বেশি। উপজেলার চিঙিগা, পেয়ারা, বেগুন, কপি, মুলাসহ বিভিন্ন সবজির খেতগুলোতে এসব পাখির আক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ফসল রক্ষায় চাষিরা এই কারেন্ট জালের ফাঁদ ব্যবহার করছেন। ফলে বিলুপ্তির পথে ফসলি জমিতে বিচারণ করা উপকারী পাখি গুলো।
সরেজমিনে বিভিন্ন সবজি খেতে গিয়ে দেখা গেছে, চিঙিগাসহ বিভিন্ন সবজি রক্ষা করতে কারেন্ট জাল দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে সবজির খেত। এতে আটকা পড়ে মৃত অবস্থায় ঝুলে আছে বাদুড়, বুলবুলি। এছাড়াও শালিক, ফিঙে, দোয়েলসহ অন্যান্য প্রজাতির পাখিও মারা পড়ে ঝুলে থাকে বলে জানান চাষিরা।
দুর্গাপুর কৃষি অধিদপ্তর জানায়, উপজেলায় বর্ষা মৌসুমে এবার ১হাজার হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়েছে। এতে চিঙিগা, বেগুন, মুলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির সবজি রয়েছে। কৃষকরা পাখির হাত রক্ষার জন্য কারেন্ট জাল ব্যবহার করছেন। এতে মারা যাচ্ছে মাটির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধিকারী পাখি বাদুড় ও চামচিকা।
দাউকান্দি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের প্রানীdurgapur-photo24-09-16-800x450বিদ্যা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক বীরেন্দ্রনাথ সরকার জানান, বাদুড় ও চামচিকা স্তন্য প্রাণী। পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় এদের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। তিনি আরো বলেন, বাদুড় ও চামচিকা পরাগায়ণ ঘটাতে সাহায্য করে। এদের মল মাটির উর্বরতা বৃদ্ধির অন্যতম উপাদান। যেসব নিশাচর কীটপতঙ্গ ফসল ও পরিবেশেরে জন্য ক্ষতিকর চামচিকা সেগুলো রাতে খেয়ে থাকে। এভাবে বাদুড় ও চামচিকা নিধন করা হলে বীজের স্বাভাবিক পরাগায়ন ও অষ্কুরোদগ্ম বন্ধ হয়ে যাবে এবং পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে।
সূত্র জানায়, দুর্গাপুর উপজেলার দেবীপুর, উজালখলসী, আলীপুর, জয়নগর, হাটকানপাড়ায়, পালিবাজার, পানানগর, ধরমপুর, কিসমত বগুড়া, আনোলিয়া, বাদইল, গোপালপাড়া, দাউকান্দি, শালঘরিয়া, শ্রীপুর, আমগ্রাম, রঘনাথপুর, সূর্যভাগ, ভবানীপুর, আড়ইলসহ শতাধিক সবজি প্রধান গ্রামে না প্রজাতির বিপুল পরিমাণ জমিতে সবজি চাষ হয়ে থাকে। এসব জমির ফসল রক্ষায় কারেন্ট জাল ব্যবহার করা হচ্ছে হরদম।
দুর্গাপুর পৌর এলাকার সবজি চাষি আব্দুস সাত্তার জানান, তার চিঙিগা খেতের চারদিকে ও ওপরে কারেন্ট জাল দিয়ে ঘিরে রেখেছেন। এতে দেড় হাজার টাকা খরচ হলেও পাখির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে প্রায় ২৫হাজার টাকার সবজি। তাছাড়া এবার সবজির দাম ভাল পাওয়ায় মহাখুশি তিনিসহ চাষিরা।
উজালখলসী গ্রামের চাষি মাইনুল ইসলাম জানান, তার বাগানে কারেন্ট জাল আটকা পড়ে বাদুড় ও চামচিকাসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখি। বাদুড় ও চামচিকা পেয়ারা বাগানের জন্য ক্ষতিক্ষর। তাদের মতে অধিকাংশ কৃষকই এসব পাখির ক্ষতিকর দিকটি জানলেও উপকার সর্ম্পকে কিছুই জানেন না।
এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড. বিমল কুমার প্রামানিক জানান, ফসলি জমিতে কারেন্ট জালের ব্যবহার সম্পূন্ন নিষিদ্ধ। ফসলি জমিতে পাখি বসলে পরাগায়ণ হয়। ফলে অধিক ফলন ফলে। তিনি আরো জানান, জমিতে কারেন্ট জাল পাতলে এতে উপকারী পাখি গুলো মারা যেতে পারে। এজন্য চাষিদের সচেতন হতে হবে বলে তিনি জানান।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ