Home > সারাদেশ > ‘ধানের দাম বেশি, তাই চালেরও’

‘ধানের দাম বেশি, তাই চালেরও’

সপ্তাহের ব্যবধানে দিনাজপুরের হিলির খুচরা ও পাইকারী বাজারে চালের দাম কেজিতে বেড়েছে তিন থেকে চার টাকা।

করোনার মধ্যে হঠাৎ করে চালের দাম বেড়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন খেটে খাওয়া ও নিম্ন আয়ের মানুষেরা।

মিল মালিকরা বলছেন, ‘ধানের দাম বেড়েছে, তাই চালের দামও বাড়ানো হয়েছে।’ আর তার সাথে ধুয়ো তুলে চাল ব্যবসায়ীরাও বলছেন, ‘মিল মালিকরা দাম বাড়িয়েছে তাই খুচরো বাজারেও চালের দাম বেড়ে গেছে।’

হিলি চালের বাজার ঘুরে দেখা যায়, বিআর-২৯ জাতের চাল বিক্রি হচ্ছে ৪২ টাকা, যা আগে ছিলো ৩৯ টাকা, বিআর-২৮ জাতের চাল ৪৪ টাকা, যেটি ছিলো ৪০ থেকে ৪১ টাকা, মিনিকেট ৪৮ টাকা, আগে ছিলো ৪৫ টাকা এবং সম্পা কাটারি রাইস মিলের চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ টাকা কেজি দরে, যেটি ছিলো ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা।

হিলি বাজারের পাইকারী চাল ব্যবসায়ী শ্রী স্বপন কুমার রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘বাজারে ধানের দাম ঊর্ধমুখী হওয়ায় মিল মালিকদের কাছ থেকে বেশি দামে চাল কিনতে হচ্ছে। তাই বেশি দামে চাল কিনে বেশি দামেই বিক্রি করতে হচ্ছে।’

ঠাকুরগাঁও ভাই ভাই অটোরাইস মিল মালিক মনিরুজ্জামান মনির বলেন, ‘‘চালের দাম তেমন বাড়েনি। ঘূর্ণিঝড় আম্ফান ও কয়েকদিনের ঝড় বৃষ্টিতে বোরো ধানের অনেক ক্ষতি হয়েছে। ভালো ধান পাওয়া যাচ্ছে না।

‘সরকার ধান কিনছে ২৬ টাকা কেজি দরে। আর চাল কিনছে ৩৬ টাকায়। খরচসহ আমাদের চালের দাম পড়ছে ৪২ টাকা কেজি। তাতে কীভাবে আমরা ৩৬ টাকা কেজি দরে চাল দেবো? যেহেতু বেশি দামে ধান কিনতে হচ্ছে, তাই বেশি দামে বিক্রি করাটাই স্বাভাবিক।”

চাল কিনতে আসা ভ্যান চালক রব্বানী রাইজিংবিডিকে বলেন, ‘‘করোনার কারণে আমাদের এমনিতেই আয় কমে গেছে। যা রোজগার করি তা দিয়ে ছেলে-মেয়ের চাহিদা পূরণ করতে হিমশিম খাচ্ছি। কোনো রকম কষ্টে করে জীবন-যাপন করছি।

‘আজ বাজারে চাল কিনতে এসে দেখি আগের চেয়ে চালের দাম কেজিতে তিন থেকে চার টাকা বেশি দাম চাচ্ছে দোকানীরা। বাড়িতে মা-বাবাসহ সাত জন খানেয়ালা। প্রতিদিন তিন থেকে চার কেজি চাল লাগে। হঠাৎ করে চালের দাম বাড়ায় হিসাব মিলছে না আমার।”

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ