Home > শিক্ষাঙ্গন > ক্যাম্পাস দখলমুক্ত করতে ১২ সংগঠনের ঐক্য

ক্যাম্পাস দখলমুক্ত করতে ১২ সংগঠনের ঐক্য

বর্তমান সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে সন্ত্রাস, দখলদারিত্ব ও সহিংস পরিবেশ বিরাজমান দাবি করে ‘সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্যে’র ঘোষণা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় সংসদ (ডাকসু) সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন।

ক্যাম্পাসগুলোতে দখলদারমুক্ত করে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ফিরিয়ে আনতেই এ ঐক্য বলে জানিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ ঐক্য ঘোষণা করা হয়েছে।

গণতান্ত্রিক শিক্ষাঙ্গন ও ছাত্র সমাজের স্বার্থে আন্দোলনকারী প্রগতিশীল ১২টি ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত ঐক্য আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করবে বলে জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, ক্যাম্পাসে চলমান সন্ত্রাস দখলদারিত্ব ও সহিংসতার অবসানের জন্য ছাত্রদের ঐক্যবদ্ধ হওয়া এখন সময়ের দাবি। গণতান্ত্রিক শিক্ষাঙ্গন ও ছাত্র সমাজের স্বার্থে আন্দোলনকারী গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল ১২টি ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত ‘সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য’ আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে কার্যক্রম শুরু করছি। সন্ত্রাসী, সাম্প্রদায়িক ও স্বৈরাচারী শক্তির বিরুদ্ধে আমরা আমাদের সংগ্রাম পরিচালনা করবে নবগঠিত ঐক্য।

সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি আল কাদেরী জয় বলেন, গত ২২ ডিসেম্বর এক ন্যক্কারজনক হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ এবং তার ছায়া সংগঠন মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। প্রশাসনের মদদ ছাড়া এই হামলা কখনো সম্ভব না। এর জন্য দায়ী প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি আর ভিসির অপসারণের জোর দাবি জানাচ্ছি। সময় এখন ঐক্যবদ্ধ হওয়ার। দখলদারিত্ব নির্মূল করতে হবে। আমরা ১২টা ছাত্রসংগঠন আজ ঐক্যবদ্ধ হয়েছি।

সংবাদ সম্মেলন থেকে ৪ দফা দাবি জানানো হয়। দাবিগুলো হল-

১। নুরুল হক নুরসহ সব শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার ও আইনানুগ বিচার করতে হবে।

২। ব্যর্থতার দায়ে প্রক্টরকে অপসারণ করতে হবে।

৩। মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। হামলায় আহতদের চিকিৎসার ব্যয়ভার প্রশাসনকে বহন করতে হবে।

৪। ক্যাম্পাসে গণতান্ত্রিক পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। হলে হলে দখলদারিত্ব, গেস্টরুম-গণরুম নির্যাতন বন্ধ করতে হবে।

ডাকসু সমাজসেবা সম্পাদক আখতার বলেন বলেন, দীর্ঘদিন ক্যাম্পাসগুলোতে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে ক্ষমতাশীন দলের ছাত্র সংগঠনের নেতাকর্মীরা। ক্ষমতার অপব্যবহার করে তারা ছাত্রদের জোড় করে মিছিল-মিটিংয়ে নিয়ে যায়। বিভিন্ন ক্যাম্পাসে তাদের দখল দারিত্ব চলছে। ক্যাম্পাসে যেন কেউ আর সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড না চালাতে পারে তা নিশ্চিত করাই আমাদের এই সংগঠনের উদ্দেশ্য।

গণতান্ত্রিক শিক্ষাঙ্গন ও ছাত্র সমাজের স্বার্থে আন্দোলনকারী গণতান্ত্রিক ও প্রগতিশীল ১২টি ছাত্র সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত ‘সন্ত্রাসবিরোধী ছাত্র ঐক্য’র সংগঠনগুলো হলো- বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, সমজাতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, বিপ্লবী ছাত্র যুব আন্দোলন, বৃহত্তর পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ, নাগরিক ছাত্র ঐক্য, স্বতন্ত্র জোট এবং ছাত্রমঞ্চ।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

শিরোনামঃ