সাড়ে ৫ হাজার শিক্ষকের পদোন্নতি: তালিকায় মৃত, অবসর ও সাজাপ্রাপ্ত

মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে প্রথমবারের মতো পাঁচ হাজার ৪৫২ জন শিক্ষককে সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। তবে তাতে বিভিন্ন ধরনের ভুলভ্রান্তি ধরা পড়েছে।

এই তালিকায় মৃত ব্যক্তি, অবসরপ্রাপ্ত ও বিভাগীয় মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ৫৩ জন শিক্ষক রয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দ্রুত এসব অসঙ্গতি চিহ্নিত করে সমাধানের চেষ্টা করা হবে বলে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) থেকে জানানো হয়েছে।

জানা গেছে, চলতি বছরের গত ৩০ জুন সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পাঁচ হাজার ৪৫২জন সহকারী শিক্ষককে সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়। জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে মাউশি থেকে ৭ হাজার ২৭৫ জন শিক্ষকের তালিকা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। সিনিয়র শিক্ষকের পদ দ্বিতীয় শ্রেণি (৯ম গ্রেড) হওয়ায় সেই তালিকা সরকারি কর্ম কমিশনে (পিএসসি) পাঠায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তার ভিত্তিতে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার শিক্ষককে পদোন্নতি দিতে সুপারিশ করে পিএসসি।

এ পদোন্নতির তালিকায় মৃত ব্যক্তি, অবসরপ্রাপ্ত ও বিভাগীয় মামলায় সাজাপ্রাপ্ত ৫৩ জন শিক্ষকের নাম যুক্ত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তালিকা থেকে এসব ব্যক্তিদের নাম বাতিল করে যোগ্যদের পদোন্নতি দিতে বিভিন্ন জেলায় কর্মরত মাধ্যমিক বিদ্যালয় শিক্ষকদের একটি দল বুধবার (১১ আগস্ট) মাউশিতে লিখিতভাবে আবেদন করেছেন।

অভিযোগকারী শিক্ষকদের প্রতিনিধি নওগাঁ কে ডি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক (গণিত) মো. হারুন অর রশীদ বলেন, ‘সহকারী শিক্ষকদের পদোন্নতির তালিকায় অনেক অসঙ্গতি রয়েছে। মৃত, অবসর যাওয়া ও বিভিন্ন অনিয়মে বিভাগীয় মামলায় সাজাপ্রাপ্ত শিক্ষকদের এ তালিকায় নাম রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এসব অসঙ্গতি সংশোধন করতে আমরা বুধবার মাউশি’র মহাপরিচালককে লিখিতভাবে কয়েকজন শিক্ষক উপস্থিত হয়ে অভিযোগ জমা দিয়েছি। দ্রুত এসব সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান করা হবে বলে মহাপরিচালক আমাদের আশ্বস্ত করেছেন।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাড়ে পাঁচ হাজার সিনিয়র শিক্ষকের পদোন্নতির তালিকায় নোয়াখালী, ফরিদপুর ও চট্টগ্রাম জেলা সদর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তিন জন মৃত শিক্ষককে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে ৪০ জনের বেশি অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও বেশ কিছু বিভাগীয় মামলায় সাজাপ্রাপ্ত শিক্ষক রয়েছেন। সব মিলে ৫৩ জন শিক্ষক সিনিয়র শিক্ষক পদে পদোন্নতি পেয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে মাউশির পরিচালক (বিদ্যালয়) অধ্যাপক বেলাল হোসাইন বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে জটিলতা থাকার পর প্রথমবারের মতো প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার সহকারী শিক্ষকদের সিনিয়র শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দেওয়া হয়েছে। এতে কিছু ভুলত্রুটি ধরা পড়েছে। তবে পদোন্নতি তালিকায় যদি মৃত, অবসরপ্রাপ্ত ও কোনো শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা চলমান বা সাজাপ্রাপ্ত হয় তাদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না বলে সরকারি নির্দেশনায় তা উল্লেখ করা হয়।’

%d bloggers like this: