Home > সম্পাদকীয় > কোথা থেকে কোথা এলাম

কোথা থেকে কোথা এলাম

আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আসলে কোথায়
গিয়ে ঠেকেছে, এর এক বাস্তব উদাহরণ হচ্ছে
“সাইফুর’স” কোচিং সেন্টার!
এর মাঝে অনেকেরই হয়তো জানা হয়ে গেছে,
বাংলাদেশ ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি
টাকা হ্যাকার’রা পাচার করে নিয়ে গেছে!
এর চাইতে মজার ব্যাপার হচ্ছে হ্যাকারদের
নিজেদের একটা শব্দের বানানের ভুলের
কারনে, তারা এর চাইতেও অনেক বেশি টাকা
পাচার করে নিয়ে যেতে পারেনি।
এই যখন ঘটনা, তখন বাংলাদেশে বিখ্যাত!!!
কোচিং সেন্টার সাইফুর’স একটা বিজ্ঞাপন
ছেপেছে। সেই বিজ্ঞাপনে বলা হচ্ছে
-ইংলিশ ভুলের কারনে বাংলাদেশ ব্যাংকের
১৬০ কোটি টাকা হ্যাকারদের হাতছাড়া!
তারা লিখেছে, ইংরেজিতে “Foundation” এর
জায়গায় “Fandation” লেখাতে হ্যাকার’রা
টাকা’টা পাচার করতে পারেনি। কারন
ব্যাংকের তখন সন্দেহ হয়েছে! বানান ঠিক
লিখলে তারা আরামসে টাকাটা পাচার করে
নিয়ে যেতে পারতো! এর পর তারা লিখেছে
-ঠিক একই ভাবে ইংরেজিতে দুর্বলতার কারনে
ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রামসহ নামি দামী
বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে ভর্তি হাতছাড়া হয়ে
যাচ্ছে হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রীর।
তাই তারা সবাইকে সাইফুর’সে ভর্তি হওয়ার
জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।
চিন্তা করে দেখুন অবস্থা! এরা ছাত্র
ছাত্রীদের পারলে ব্যাংক ডাকাত হওয়ার
জন্য উৎসাহিত করছে! তবে আমি সব চাইতে
বেশি আতঙ্কিত হয়েছি ওই বিজ্ঞাপনের একদম
নিচের দিকে দেয়া একটা তথ্য দেখে।
সেখানে লেখা আছে
-একমাত্র ভার্সিটি ভর্তি কোচিং সেন্টার,
যেটা চালাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের
প্রাক্তন শিক্ষক!
এই তথ্য পাওয়ার পর আতঙ্কিত হওয়া ছাড়া আর
উপায় নেই। দেশের সব চাইতে নামকরা
বিশ্ববিদ্যালয়, যেখানে সব চাইতে মেধাবীরা
গিয়ে ভর্তি হয়; সেই বিশ্ববিদ্যালয়ে একজন
প্রাক্তন শিক্ষক চালাচ্ছেন এমন একটা
কোচিং সেন্টার, যেখানে কিনা বলা হচ্ছে-
হ্যাকারদের মতো ইংরেজি ভালো মতো না
জানলে ছাত্রছাত্রীদেরও জীবন শেষ হয়ে
যেতে পারে!
আমি আজীবন জেনে এসছি, চুরি করা,
ডাকাতি করা, হত্যা ,ধর্ষণ এই জাতীয় বিষয়
গুলো থেকে বিরত থাকার জন্য
ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষা দেয়া হয়ে থাকে।
আমাদের সমাজ ও শিক্ষা ব্যবস্থা এতোই
নিচে নেমে গেছে যে, এখন হ্যাকারদের মতো
চোরদেরকে রোল মডেল হিসেবে উপস্থাপন
করা হচ্ছে! তাও আবার একজন প্রাক্তন
বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক দ্বারা পরিচালিত
প্রতিষ্ঠানে! আর কয়দিন পর হয়তো
বিজ্ঞাপনে এমন কিছু দেখলেও মনে হয় আর
অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না
-ইংরেজি না জানার কারনে হাজার হাজার
ছাত্র-ছাত্রী বয়ফ্রেন্ড-গার্লফ্রেন্ড
হারাচ্ছে! এক্ষুনি আমাদের প্রতিষ্ঠানে ভর্তি
হয়ে শিক্ষা জীবন থেকেই উপভোগ করুন
অফুরন্ত যৌবন। অসংখ্য ভক্তকুলের আঁতে ঘাঁ লাগতে পারে,তাতে কিন্তু সচেতন সুধী সমাজের করার কিছুই নেই।

আপনার ওয়েবসাইট তৈরি করতে ক্লিক করুন........
Ads by জনতার বাণী

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Translate »
শিরোনামঃ